ইভ্যালির চেয়ারম্যান ও এমডির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

বিতর্কিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরীন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেলের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) দুজনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয় বলে দুদক জানিয়েছে।

দুদকের ভাষ্য, ইভ্যালির বিরুদ্ধে আসা অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু করেছে তারা।  তারা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছে, প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরীন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেল গোপনে দেশত্যাগের চেষ্টা চালাচ্ছেন। অনুসন্ধান কার্যক্রম চলমান থাকা অবস্থায় অভিযোগসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা দেশ ত্যাগ করলে অনুসন্ধান কার্যক্রম ব্যাহত হবে। এ কারণে তাঁদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

উল্লেখ, গত ৪ জুলাই বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক চিঠির প্রেক্ষিতে দুদক ইভ্যালির বিরুদ্ধে উঠা বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে অনুসন্ধান শুরু করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দুদকসহ ৪টি সংস্থাকে চিঠি দিয়েছিল। বাকী ৩টি সংস্থা হচ্ছে-স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ, বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই প্রতিবেদনে ইভ্যালির কার্যক্রমে প্রায় ৩৩৯ কোটি টাকার অনিয়মের চিত্র উঠে আসে। প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন মার্চেন্টের (পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান) কাছ থেকে বাকীতে পণ্য নিয়ে সেগুলোর দাম শোধ করেনি। অন্যদিকে লাখ লাখ ক্রেতার কাছ থেকে পণ্যের আগাম মূল্য নিলেও তাদেরকে পণ্য দেয়নি।

প্রতিবেদন অনুসারে, এ বছরের ১৪ মার্চ ইভ্যালির মোট সম্পদ পাওয়া যায় ৯১ কোটি ৬৯ লাখ ৪২ হাজার ৮৪৬ টাকা (চলতি সম্পদ ৬৫ কোটি ১৭ লাখ ৮৩ হাজার ৭৩৬ টাকা) এবং মোট দায় দেখা যায় ৪০৭ কোটি ১৮ লাখ ৪৮ হাজার ৯৯৪ টাকা।

ওই তারিখে প্রতিষ্ঠানটির কাছে গ্রাহকের নিকট দায় ২১৩ কোটি ৯৪ লাখ ৬ হাজার ৫৬০ টাকা। অর্থাৎ পণ্যের মূল্যবাবদ এই পরিমাণ টাকা আগাম জমা নেওয়া হলেও পণ্য সরবরাহ করা হয়নি। অন্যদিকে এ সময়ে মার্চেন্টদের নিকট দায় ১৮৯ কোটি ৮৫ লাখ ৯৫ হাজার ৩৫৪ টাকা। অর্থাৎ পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে নেওয়া পণ্যের মূল্য বকেয়া আছে এই পরিমাণ। সব মিলিয়ে কোম্পানিটির কাছে ৪০৩ কোটি ৮০ লাখ ১ হাজার ৯১৪ টাকার চলতি সম্পদ থাকার কথা থাকলেও সম্পদ রয়েছে মাত্র ৬৫ কোটি ১৭ লাখ ৮৩ হাজার ৭৩৬ টাকা।