কসবায় আট বাড়িতে ডাকাতি

0
77
brahmanbaria
ব্রহ্মণবাড়িয়ার মানচিত্র
brahmanbaria
ব্রহ্মণবাড়িয়ার মানচিত্র

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুদিনের ব্যবধানে আট বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি হয়েছে। ডাকাতদের অস্ত্রাঘাতে আহত হয়েছেন চারজন। ডাকাতরা ওই আট বাড়ি থেকে নগদ প্রায় পাঁচ লাখ টাকা, ১৭ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোনসেটসহ অন্যান্য মালামাল লুটে নেয়।

এদিকে ডাকাতিকালে স্থানীয় জনতার গণপিটুনীতে হোসেন আলী (৩২) নামে এক ডাকাত মারা যাওয়ার ঘটনায় নিহতের স্ত্রী অজ্ঞাতনামা শতাধিক লোকের বিরুদ্ধে হত্যা মামল করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার রাতে উপজেলার খাড়েরা ইউনিয়নের সোনারগাঁও গ্রামের লোকমান মিয়ার বাড়িতে ২০/২৫ জনের একটি ডাকাতদল দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে। ডাকাতরা ঘরের লোকদের পিস্তল ঠেকিয়ে ও মারধর করে নগদ তিন লাখ টাকা, দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুইটি মোবাইল ফোনসেটসহ অন্যান্য মালামাল লুটে নেয়। একই সময় হারুনুর রশিদের বাড়িতে হানা দিয়ে ডাকাতরা নগদ ২৫ হাজার টাকা, দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোনসেট।সোলেমান ভূঁইয়ার বাড়ি থেকে ডাকাতরা নগদ পাঁচ হাজার টাকা, এক ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইল ফোনসেট। শওকত মেম্বারের বাড়ি থেকে চার ভরি স্বর্ণালঙ্কার।আওয়াল মিয়ার বাড়ি থেকে নগদ টাকা এবং সকিব মিয়ার বাড়ি থেকে আট ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুটে নিয়েছে।

এদিকে গত শনিবার ভোররাতে পার্শ্ববর্তী মেহারী ইউনিয়নের মেহারী গ্রামের দুই বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ডাকাতদের হামলায় আহত হয় চারজন। স্থানীয় জনতার গণপিটুনিতে আহত হয়ে পরে মারা যায় এক ডাকাত। শনিবার ভোররাতে মেহারী গ্রামের আলী আহাম্মদের পুত্র আল-আমিন ভূঁইয়া ও মুছন ভূঁইয়ার বাড়িতে ২৫/৩০ জনের ডাকাতদল হানা দেয়। ডাকাতরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে ঘরের লোকজনকে অস্ত্রমুখে জিম্মি রেখে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে নগদ ২০ হাজার টাকা, দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও একটি মোবাইল ফোনসেট লুট করে। একই সময় সামছু মিয়ার বাড়িতেও ডাকাতরা দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে ৭০ হাজার টাকা, দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও দুইটি মোবাইল ফোনসেট লুট করে। ডাকাতদের হামলায় আল-আমিন (২৬), মুছন মিয়া (২৮) আলী আহাম্মদ (৭০) ও রুহুল আমিন (২২) আহত হয়।

ডাকাত কবলিতদের আর্তচিৎকারে স্থানীয় লোকজন দৌঁড়ে এলে ডাকাতরা পালিয়ে যাওয়ার সময় হোসেন আলী নামের এক ডাকাতকে আটক করে গণপিটুনী দেয়। খবর পেয়ে কসবা থানা পুলিশ গণপিটুনিতে আহত ডাকাত হোসেন আলীকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়। নিহত হোসেন আলী হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার শরিফপুর গ্রামের রবি মোল্লার পুত্র। পুলিশ ময়না তদন্ত শেষে নিহতের লাশ তার স্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করে।

এদিকে নিহতের স্ত্রী সাবানা বেগম বাদি হয়ে গত রোববার রাতে অজ্ঞাতনামা শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে কসবা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মাত্র দুই দিনের মধ্যে উপজেলার পাশাপাশি দুই গ্রামের আট বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান জানান পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং থানায় একটি ডাকাতি মামলা রুজু করছে।

এসপি/সাকি