অপহরণের পর ১৩ তুর্কিকে হত্যা করেছে কুর্দিরা

নিষিদ্ধ কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি (পিকেকে) ইরাকে ১৩ জন তুর্কিকে অপহরণ করে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে তুরস্ক। যদিও পিকেকে দাবি করেছে, ইরাকে তুরস্কের সেনা তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছিল। সেই সময় ওই তুর্কিরা মারা গেছে।

তুর্কি সরকার জানায়, উত্তর ইরাকের একটি গুহায় তুরস্কের সেনা অভিযান চালায়। গুহার ভিতর ঢুকে ১৩ জন তুর্কির মৃতদেহ উদ্ধার করে তারা।

তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, ১২ জনের মাথায় গুলি করা হয়েছিল। একজনের কাঁধে। মৃতদেহ পূর্ব তুরস্কে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানকার গভর্নর জানিয়েছেন, মৃতদের মধ্যে ছয়জন সেনা ও দুইজন পুলিশ কর্মী। তাঁদের ২০১৫-১৬ নাগাদ তাঁদের অপহরণ করা হয়।

১৯৮৪ সাল থেকে তুরস্কের সঙ্গে পিকেকে-র বিরোধ চলছে। গত দুই বছরে তুরস্কের সেনা বারবার পিকেকে-র বিরুদ্ধে অভিযান করেছে। তার ফলে ৪৮ জন পিকেকে সদস্য মারা গেছেন বলে তুরস্কের দাবি। আর তাঁদের তিনজন সেনাও মারা গেছেন।

এর আগে সন্ত্রাসবাদীদের মোকাবিলায় তুরস্ক ও ইরাক সরকার একমত হয়। গত ডিসেম্বরে ইরাকের প্রেসিডেন্ট তুরস্ক গেছিলেন। সেখানে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়। ইরাকের প্রেসিডেন্ট বলেন, তুরস্কের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয় এমন কোনো কাজ তিনি বরদাস্ত করবেন না। এরদোয়ান বলেন, বিচ্ছিন্নতাবাদীদের তুরস্ক, ইরাক ও সিরিয়ায় কোনো স্থান নেই। সূত্র: রয়টার্স, এএফপি, এপি

 

অর্থসূচক/এএইচআর