বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে ডিআরএস নিয়ে ধোঁয়াশা

আগামী ২০ জানুয়ারী থেকে শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার ৩ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। এই ম্যাচ থেকেই ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) থাকবে নিয়ে এ নিয়ে বেশ ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

কেননা ইংল্যান্ড থেকে এই সিস্টেম পরিচালনা জন্য একজন ইঞ্জিনিয়ার বাংলাদেশে আসার কথা। কিন্তু তিনি এখনো বাংলাদেশে এসে পৌছাননি। তাছাড়া ইংল্যান্ডে করোনা ভাইরাসের নতুন ধরণ সংক্রমিত হওয়ায় দেশটি থেকে আগত ব্যক্তিদের ১৪ দিনের কঠোর আইসোলেশনে থাকতে হয়। তাহলে পুরো ওয়ানডে সিরিজ জুড়েই সেই ইঞ্জিনিয়ারকে আইসোলশনে থাকার কথা। তখন ডিআরএসে ব্যবহার দেখা নাও যেতে পারে।

তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জানিয়েছেন, ‘ডিআরএস তো অবশ্যই থাকবে। তবে ডিআরএসের একটি সমস্যা হচ্ছে আমাদের একজন ইঞ্জিনিয়ার লন্ডন থেকে আসার কথা। আপনারা জানেন যে ইংল্যান্ডের কোভিড প্রটোকল আছে। ১৪ দিনের মধ্যে প্রথম ৪ দিন সরকারি আইসোলেশনে থাকতে হবে। আর ১০ দিন নিজের ব্যবস্থায় থাকতে পারবে, এই ১৪ দিন। কিন্তু এটার জন্য আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেছি। একই সঙ্গে কোভিড অথরিটি যারা এটা দেখাশোনা করেন তাদের সঙ্গেও আমরা কথা বলেছি। তো দেখা যাক এখন কি হয়। তবে একজন ইঞ্জিনিয়ার যদি আমরা সময়মতো নিয়ে আসতে পারি তাহলে ২০ তারিখে ডিআরএসের ব্যবহার হতেও পারে । তবে যদি আমরা সময়মতো সবকিছু শেষ করতে পারি তাহলে হয়তো ডিআরএসের সমস্যাটা হবেনা। নতুবা এমন হতে পারে এই ম্যাচের পর থেকে ডি আর এসের সমস্যাটার সমাধান হয়ে যাবে।’

ডিআরএস ক্রিকেট খেলায় ব্যবহৃত প্রযুক্তিভিত্তিক পদ্ধতি। এর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে অন-ফিল্ড আম্পায়ার কর্তৃক ব্যাটসম্যানের আউটের ক্ষেত্রে বিতর্কিত সিদ্ধান্তের পর্যালোচনা করা। শুরুতে আইসিসি সকল ধরনের আন্তর্জাতিক খেলায় বাধ্যতামূলকভাবে ইউডিআরএস ব্যবহারের কথা জানায়। পরবর্তীতে এটি ঐচ্ছিক হিসেবে ঘোষণা করে।

 

অর্থসূচক/এএইচআর