মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলায় জিতলেন রাখাইন নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

0
248

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ে পর অবশেষে জয় পেয়েছেন ধর্ষণের শিকার এক রাখাইন নারী। থেইন উ (ছদ্মনাম) নামের ওই নারীর করা মামলায় কয়েক মাসের আইনি লড়াইয়ের পর বিরল জয় পেলেন তিনি।

৩৬ বছর বয়সী থেইন উ মনে করেন, তার এই জয় সেনাবাহিনীর ধর্ষণের শিকার হওয়া অন্য নারীদের কথা বলার সাহস যোগাবে।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন থেকেই সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, নিপীড়ন ও অন্যান্য সহিংসতা চালানোর অভিযোগ রয়েছে। তবে বরাবরই দেশটির সেনাবাহিনী এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

রাখাইন রাজ্যে দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির লড়াই চলছে। গত জুনে রাজ্যটিতে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন থেইন উ। তিনি বলেন, আমার মতো আরও বহু নারীর সঙ্গেই এমন আচরণ করা হয়েছে। আমি যদি প্রকাশ না করতাম, তাহলে হয়তো আরও অনেকের সঙ্গেও এটা ঘটতো।

ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর থেইন উ প্রথম যখন অভিযোগ তোলেন তখন সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করা হয়। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এই অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করা হয়। থেইন উ জানান, ধর্ষণের ঘটনার পর সামাজিকভাবেও নানা প্রতিবন্ধকতার স্বীকার হয়েছেন তিনি।

রায় ঘোষণার পর থেইন উ বলেন, আমি আনন্দ ও কষ্ট দুটোই পাচ্ছি। আমি পুরোপুরি বিশ্বাস করতে পারছি না এই রায় সংঘাত কবলিত এলাকায় ধর্ষণ এবং নারী নিপীড়ন থামাবে। কারণ দ্বিমুখী আচরণের কারণে তারা (সেনাবাহিনী) মানুষের কাছে বিশ্বাস হারিয়েছে।

এদিকে শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তিন ধর্ষককে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। নিজেদের স্বচ্ছ তদন্ত অনুযায়ী এই রায় দেওয়া হয়েছে বলে দাবি তাদের।

তবে পর্যবেক্ষকরা সতর্ক করে দিয়ে বলছেন, মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে থেইন উ’র বিজয় বড় কোনও পরিবর্তন আনবে বলে মনে করার এখনও যথেষ্ট সময় আসেনি। অতীতে সেনাবাহিনী ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকারের পাশাপাশি কোন ক্ষেত্রে ধর্ষণের অভিযোগ তোলাদের বিরুদ্ধে উল্টো মানহানি মামলা দায়ের করে।

সূত্র: আল-জাজিরা।

অর্থসূচক/কেএসআর