লজ্জার রেকর্ড গড়ে ৩৬ রানেই গুটিয়ে গেল ভারত

স্পোর্টস ডেস্ক

0
337

ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপকে রীতিমতো পাড়ার দল বানিয়ে ছাড়লেন অস্ট্রেলিয়ার দুই পেসার প্যাট কামিনস ও জশ হ্যাজলউড। নিজেদের ইতিহাসের সর্বনিম্ন ৩৬ রানে শেষ হয়ে গেছে ভারতের ইনিংস। ফলে অ্যাডিলেড টেস্টের নিয়ন্ত্রণ এখন পুরোপুরি স্বাগতিকদের হাতে, ম্যাচ জিততে তাদের প্রয়োজন মাত্র ৯০ রান।

দিবারাত্রির এই টেস্টের তৃতীয় দিন ৬২ রানে এগিয়ে থেকে শুরু করেছিল সফরকারীরা। দিনের শুরুতে হাতে ছিল ৯ উইকেট। ক্রিজে ছিলেন ওপেনার মায়াঙ্ক আগরওয়াল ও নাইটওয়াচম্যান যশপ্রীত বুমরা। ব্যাট করার জন্য তখনও অপেক্ষা করছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি, চেতেশ্বর পূজারা, অজিঙ্কা রাহানের মতো ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু কীসের কি! সকালটা যে নিজের করে নেওয়ার জন্য পণ করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার পেসার প্যাট কামিন্স!

শেষ পর্যন্ত মাত্র ৩৬ রানেই গুটিয়ে গেছে ভারত। টেস্ট ইতিহাসে সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার নিউজিল্যান্ডের রেকর্ডটা (২৬ রান) ভারত পেরিয়ে গেছে বটে, তবে ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ডটা পেরোতে পারলেন না কোহলিরা।

এর আগে টেস্টে এক ইনিংসে ভারতের সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ড ছিল ৪২ রানের। সেটি ছিল ১৯৭৪ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের কাছে।

শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) ম্যাচের দ্বিতীয় দিন ভারতীয় বোলারদের আক্রমণে দলগতভাবে ২০০ রানও করতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া, অলআউট হয় ১৯১ রানে। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৪৪ রান করার সুবাদে ৫৩ রানের লিড পায় ভারত। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের ব্যাটসম্যানদের নিয়ে ছেলেখেলাই করল অস্ট্রেলিয়ার পেসাররা।

বোলারদের কল্যাণে ৫৩ রানের লিড পেলেও, দ্বিতীয় দিন শেষে ৯ রান তুলতেই ১ উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত। আজ (শনিবার) ম্যাচের তৃতীয় দিন ভারতকে অলআউট করতে দেড় ঘণ্টাও নেয়নি অস্ট্রেলিয়া। কামিনস ও হ্যাজলউডের নিখুঁত লাইন-লেন্থের সামনে কোনও জবাবই খুঁজে পাননি চেতেশ্বর পুজারা-বিরাট কোহলিরা।

ভারত অবশ্য অলআউট হয়নি। শেষ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শামি রিটায়ার্ড হার্ট হয়েছেন। তবু দিন শেষে লজ্জার রেকর্ডেই তো নামটা উঠছে কোহলিদের। ক্রিকেট ইতিহাস ঠিকই ভারতের সবচেয়ে কম রানে গুটিয়ে যাওয়ার রেকর্ডে এই ইনিংসকেই দেখাবে বারবার।

প্রতিপক্ষকে ৩৬ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পথে সবচেয়ে বড় আঘাতটা হেনেছেন ২৯ বছর বয়সী ডানহাতি পেসার হ্যাজলউড। মাত্র ৪ রানে তিনি পূরণ করেন ক্যারিয়ারের অষ্টম ফাইফার। শেষপর্যন্ত তার বোলিং ফিগার দাঁড়ায় ৫-৩-৮-৫। অন্যদিকে কামিনসের বলেই হাতে ব্যথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন শামি। ফলে হয়নি কামিনসের ফাইফার। তার বোলিং ফিগার ১০.২-৪-২১-৪!

ভারতের পক্ষে ব্যাট হাতে ন্যুনতম প্রতিরোধ গড়তে পারেননি কোনও ব্যাটসম্যান। সর্বোচ্চ ৯ রান করেছেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল, হানুমা বিহারি করেছেন ৮ রান। রানের খাতা খোলার আগেই থেমেছেন তিনজন। টেস্ট ক্রিকেটে দলের কোনও ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কে যেতে না পারার মাত্র দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এর আগে ১৯২৪ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এমন লজ্জায় পড়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা।

অর্থসূচক/কেএসআর