জানুয়ারির শেষ দিকে ভ্যাকসিন আনার চেষ্টা করছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
213
ফাইল ছবি

আগামী জানুয়ারির শেষের দিকে ভ্যাকসিন আনতে পারবো বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, কোনো কারণে দেরি হলেও ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি অবশ্যই ভ্যাকসিন আনতে পারব। এ ব্যাপারে সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।

আজ বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলায় কর্নেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে অনেক বড় বড় দেশে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে সবকিছু ঠিকমতো চলছে। আমেরিকার অর্থনীতিতে ১৫ ভাগ এবং ভারত সাত ভাগ পিছিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের উন্নয়নের চাকা ঘুরছে বলেই আমরা পাঁচ ভাগ এগিয়েছি।

মন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলায় এবং নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য বিভাগের গৃহীত পদক্ষেপ সারাবিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, আমরাও দেশকে এগিয়ে নিতে চাই। প্রধানমন্ত্রী যেভাবে নির্দেশনা দিচ্ছেন, আমরা সেভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

আমাদের উন্নয়নের যারা বিরোধিতা করে, সে বিএনপি-জামায়াত জোট পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো, বিদুৎ খাতে দুর্নীতি করে শেষ করে দিয়েছিলো, বাড়িতে কল-কারখানায় বিদুৎ ছিলো না। আমরা ভুলে যাইনি বাংলাভাই শাহেদ আব্দুল রহমানের কথা। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারীদের এমপি-মন্ত্রী বানিয়েছিলো তারা। শেখ হাসিনাই তাদের বিচার করে যথাযথ জায়গায় পৌঁছে দিয়েছেন, যোগ করেন জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা আবার দেখতে পাচ্ছি, মাথা চাড়া দিচ্ছে মৌলবাদ। আমরা তো আর দেশকে অন্ধকারে ঠেলে দিতে পারি না, বাংলাদেশ পেছন দিকে যাবে না, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে।

মানিকগঞ্জ কর্নেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প পরিচালক ডা. খান মোহাম্মদ আরিফ, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের সচিব আলী নূর, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান, মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম, জেলা সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল আমিন আখন্দ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

অর্থসূচক/কেএসআর