সব ছাপিয়ে আলোচনায় গোপন বার্তা!

0
176

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালীন ইংল্যান্ড দলকে গোপন বার্তা পাঠিয়েছিলেন দলটির বিশ্লেষক নাথান লেমন। সেটিই ক্রিকেট বিশ্বে সমালোচনার খোরাক জুগিয়েছে। এই কাজের নৈতিকতা নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন।

ইংল্যান্ড দলের পেসার মার্ক উড জানিয়েছেন, এ বিষয়ে ম্যাচ রেফারির অনুমতি নিয়েছিলেন তারা। এই ম্যাচের পর জয় পরাজয় ছাপিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ইংল্যান্ডের ৩য় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের আকর্ষণের কেন্দ্র বিন্দুতে চলে এসেছে ইংল্যান্ডের গোপন সংকেতের বিষয়টি।

ইংল্যান্ডের ফিল্ডিংয়ের সময়ে দেখা গিছে- ড্রেসিংরুমের সামনে সংখ্যা ও ইংরেজি আদ্যাক্ষর লিখা বোর্ড ঝুলছে। বোর্ডটি ঝুলিয়েছেন দলীয় বিশ্লেষক লেমন। গুঞ্জন উঠেছে যে সংকেত মেনে অধিনায়ক ফিল্ডিং পরিবর্তনসহ বোলার পরিবর্তনের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে থাকেন।

যখন পুরো বিশ্বে এই বিষয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে সে সময় ইংলিশ সহ-অধিনায়ক জস বাটলার হালকা হাস্যরসাত্মক মন্তব্য করেছেন। তিনি একে লটারি নাম্বার ও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) এর স্ট্র্যাটেজিক টাইম আউট এর সাথে তুলনা করেছেন। এছাড়াও ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) থেকে জানানো হয়েছে মাঠে অধিনায়ক এর নিকট কোন সংকেত পাঠানো নিয়ে তাঁরা কোন নির্দেশ দেননি। অধিনায়ক এমন সংকেত কাজে লাগাবেন কিনা এটি সম্পূর্ণ অধিনায়কের সিদ্ধান্ত।

মাঠে সংকেত পাঠিয়ে ইংল্যান্ড দল ক্রিকেটীয় আইন লঙ্ঘন করেছে কিনা এই বিতর্ক এখন তুঙ্গে সেই সঙ্গে প্রশ্ন উঠছে নৈতিকতা নিয়েও। সে সময়ে এ বিষয়ে ইংলিশ পেস বোলার মার্ক উড বলেন, ‘দলের পক্ষ থেকে প্রথমেই ম্যাচ রেফারির কাছে থেকে অনুমতি নেয়া হয়েছিল। আমার মনে হয় এটি ক্রিকেটের নতুন অংশ হতে যাচ্ছে। আমরা প্রতিনিয়তই খেলার উন্নতি করার নতুন সব পন্থা অবলম্বনের চেষ্টা চালাচ্ছি। আমাদের বিশ্লেষকের বোর্ডের মাধ্যমে সংকেত পাঠানো নিশ্চিভাবেই খেলায় নতুন একটি সংযোজন।’

অধিনায়ক মরগান প্রসঙ্গে এই ইংলিশ পেসার বলেন, ‘মরগান একজন দারুণ অধিনায়ক। আমার মনে হয়না মাঠের বাহিরে থেকে কোন নির্দেশনা প্রয়োজন আছে। কিন্তু নাথান যদি পাঠিয়ে থাকেন সেটি অবশ্যই দারুণ কাজ করেছেন তিনিও। বাহিরের নির্দেশনা মাঠে সামান্য সুবিধা দিতে পারলেও আমার মনে হয়না মাঠের বাহিরের বিষয়গুলোতে খুব বেশি মনোযোগ দেয়া সম্ভব হয়।’

দক্ষিণ আফ্রিকাকে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ধবলধোলাই করলেও সব কিছু ছাপিয়ে গিয়েছে সংকেত পাঠানোর ইস্যু। এখন দেখার বিষয় এটাতে তারা তাদের মনোযোগ ধরে রাখতে পারবেন কিনা। নাকি ইংল্যান্ডে দলের মনোযোগ হারানোর সুযোগে দক্ষিণ আফ্রিকা দল ওয়ানডে সিরিজেই ঘুরে দাঁড়াবে। সেটি সময়ই বলে দেবে।

 

অর্থসূচক/এএইচআর