মানবপাচারে জড়িত দুই বিদেশি এয়ারলাইন্স: সিআইডি

0
188

বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশে মানবপাচারে দু’টি এয়ারলাইন্সের কর্মীদের জড়িত থাকার তথ্য পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। সংস্থাটি বলছে, মানবপাচারের ঘটনা তদন্ত কার্যক্রমের সময় বিদেশি দু’টি এয়ারলাইন্সের বেশ কিছু ত্রুটি পাওয়া গেছে, যা মামলার তদন্তে উল্লেখ থাকবে।

সিআইডির অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মাহবুবুর রহমান আজ মঙ্গলবার (০১ ডিসেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে এ তুলে ধরেন। তবে তদন্তের স্বার্থে এয়ারলাইন্স দু’টির নাম প্রকাশ করেননি তিনি।

সিআইডি প্রধান বলেন, মানবপাচারের ঘটনায় বিদেশে যাদের পাচার করা হয়েছে তাদের সবাইকেই ভিজিটর/ কনফারেন্স ভিসায় পাঠানো হয়েছে। তবে এসব ভিসায় যাওয়া ভিজিটরদের রিটার্ন (ফিরতি) টিকিট থাকার কথা থাকলেও পাচার হওয়া কারও ফিরতি টিকিট ছিল না। এটা এয়ারলাইন্সের একটি বড় ত্রুটি। আর অধিকাংশ মানবপাচার এই দু’টি এয়ারলাইন্সের মাধ্যমেই হয়েছে।

তিনি বলেন, এয়ারলাইন্সের এই ত্রুটির বিষয়ে সেখানের কর্মকর্তারা জড়িত। আমরা এয়ারলাইন্স দু’টির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গেও কথা বলেছি। তারাও এই ত্রুটির বিষয়ে স্বীকার করেছেন।

এ বিষয়ে ইমিগ্রেশনের কোনো দায় ছিল কি-না জানতে চাইলে মাহবুবুর রহমান বলেন, ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাদের যাওয়া ও আসার দুটি টিকিট দেখানো হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে রিটার্ন টিকিট সঠিক নয়। এটা ওই এয়ারলাইন্সের লোকজনও জানে।

গত ২৮ মে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে একটি মানবপাচারকারী চক্র। ওই ঘটনায় চার আফ্রিকান অভিবাসীও নিহত হন। অবৈধভাবে ইউরোপ যাওয়ার জন্য লিবিয়ায় দুর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছিলেন ৩৮ বাংলাদেশি। লিবিয়ার মিলিশিয়া বাহিনীর সঙ্গে যোগসাজশে পাচারকারীরা মিজদাহ শহরে ওই দলটিকে জিম্মি করে এবং আরও টাকা দাবি করে। এটা নিয়ে নির্যাতন শুরু করলে মূল পাচারকারীকে হত্যা করে আফ্রিকার কয়েক অভিবাসী। এরপর তার পরিবার ও বাকি পাচারকারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩০ জনকে হত্যা করে। এ সময় আরও ১১ জন আহত হন।

ওই ঘটনার পর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ২৬টি মামলা হয়। ২৬টি মামলার মধ্যে ২৫টির তদন্ত করছে সিআইডি। এসব মামলায় ২৯৯ জন আসামির ১৭১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪২ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

সম্প্রতি সিআইডির অনুরোধে মানবপাচারকারী চক্রের ছয় সদস্যের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করে ইন্টারপোল। রেড নোটিশ জারি করা আসামিরা হলেন- মিন্টু মিয়া, স্বপন, শাহাদাত হোসেন, নজরুল ইসলাম মোল্লা, ইকবাল জাফর ও তানজিরুল।

অর্থসূচক/কেএসআর