এসএমই খাতে কর্মসংস্থান বেড়েছে ১০৫ শতাংশ

0
232

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পগুলো পাঁচ বছরের ব্যবধানে ১০৫ দশমিক ৭ শতাংশের বেশি নতুন চাকরির সুযোগ তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

আজ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআরআই) এবং আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড আয়োজিত গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে আসে।

‘কর্মসংস্থান তৈরিতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের ভূমিকা’ শীর্ষক গবেষণা প্রবন্ধটি উপস্থাপনা করেন পিআরআইয়ের গবেষক ড. বজলুল হক। আইডিএলসির ৭৮২ জন এসএমই উদ্যোক্তার উপর এই গবেষণা পরিচালনা করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক সায়েমা হক বিদিশার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর এবং আইডিএলসির সিইও আরিফ খান।

গবেষণায় দেখানো হয়, পুরুষ উদ্যোক্তাদের তুলনায় নারী মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে (১৪৬ শতাংশ) বেশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। ২০১৫ সাল থেকে ২০১৯ সাল অর্থাৎ বিগত পাঁচ বছরে সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে সবেচেয়ে বেশি কর্মসস্থান সৃষ্টি হয়েছে। যা গড়ে ১৭৪ শতাংশের বেশি। উৎপাদনমুখী প্রতিষ্ঠানের কর্মসংস্থান তৈরিও চোখে পড়ার মতো। যা গত ৫ বছরের বেড়েছে ১৩১ শতাংশ।

চাকরির ধরনের মধ্যে সর্বাধিক বৃদ্ধির হার লক্ষ্য করা যায় বেতনভুক্ত চাকরির ক্ষেত্রে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের শুরুর সময় থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সামগ্রীকভাবে ১৩৪ শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে। সবচেয়ে বেশি লক্ষণীয় হচ্ছে- এসএমই ব্যবসায়ীরা তাদের পারিবারিক কর্মীদের উপর নির্ভরশীলতা থেকে প্রাতিষ্ঠানিক বেতনভুক্ত কর্মসংস্থানের দিকে ঝুঁকছেন।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, আইডিএলসি থেকে ২০১৯ সালে ১৩ হাজার ৯৩১জন উদ্যোক্তা ঋণ সহায়তা নিয়েছেন। এর মধ্যে নারী উদ্যোক্তা ৮ দশমিক ৪ শতাংশ আর পুরুষ উদ্যোক্তা ৯১ দশমকি ৬ শতাংশ।

ঋণে সহায়তা নেওয়া উদ্যোক্তাদের মধ্যে মাঝারি উদ্যোক্তা ৩০ শতাংশ আর ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ৭০ শতাংশ। ১৩ হাজার উদ্যোক্তার মধ্যে থেকে ১ হাজার এসএমই উদ্যোক্তাকে নির্বাচিত করা হয়েছে। তার মধ্যে ৭৮২ জনের উপর গবেষণা করা হয়।

গবেষণায় বলা হয়, আইডিএলসি থেকে ২০০০ সাল কিংবা তার আগে ঋণ সহায়তা নেওয়া উদ্যোক্তাদের প্রবৃদ্ধি ১০৭ শতাংশ। সেই সময়ে কর্মসংস্থানের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩৭ শতাংশ হারে। ২০০০ থেকে ২০১৯ সাল অর্থাৎ গত ১৯ বছরে কোম্পানির গড় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ শতাংশ। দিনদিন আইডিএলসি থেকে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ নেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে।

পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, দেশের অর্থনীতিতে এসএমই খাতের অবদান ৯৯ শতাংশ। এখানে ২ কোটি লোকের কর্মসংস্থান রয়েছে। এই সেক্টরের উদ্যোক্তারা বেশিরভাগ গ্রাম অঞ্চলের। তারা দেশের মার্কেটের উপর ভিত্তি করে পণ্য তৈরি করেন। আগামীতে তাদের উৎপাদিত পণ্য বিদেশে রফতানির বিষয়ে আগ্রহী করতে হবে। পাশাপাশি বড় কোম্পানিগুলো ছোট কোম্পানিগুলো থেকে পণ্য গ্রহণ করলে দ্রুত দেশের অর্থনীতির গতি পাল্টে যাবে।

তিনি বলেন, আইডিএলসি থেকে ঋণ নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবসা বেড়েছে দ্বিগুন। ফলে এই সেক্টরের উন্নয়েন সরকার এবং প্রাতিষ্ঠানিক সহায়তা আরও বাড়াতে হবে।

আইডিএলসি সিইও আরিফ খান বলেন, আইডিএলসি থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা পরিচালনাকারী উদ্যোক্তাদের ব্যবসা গড়ে ৫ শতাংশ হারে বেড়েছে। ৮ শতাংশ হারে নতুন করে কর্মসংস্থান বেড়েছে। দেশের উন্নয়নে প্রয়োজন এসএমই খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি। গুলশানের মত এলাকায় এখনো দিনে ৫ শতাংশ সুদে টাকা নিয়ে ব্যবসা করছে মানুষ। কারণ এই ব্যবসায়ীরা ব্যাংক কিংবা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ পাচ্ছেন না।

অর্থসূচক/এমআই/কেএসআর