গানম্যান আছেন, কিন্তু গান কই?

0
104

গত ২৯ অক্টোবর নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরা সাকিব আল হাসান গেল এক সপ্তাহে ছিলেন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। মঙ্গলবার মিরপুর স্টেডিয়ামে অনুশীলনের সময় তার সঙ্গে দেখা গিয়েছিল একজন নিরাপত্তা কর্মীকে। বন্দুক কাঁধে নিয়ে বাংলাদেশ সাবেক এই অধিনায়কের পেছনে হাঁটছেন তিনি।

সেদিনই দেশের সব গণমাধ্যমে বিষয়টি উঠে আসে। জানা যায়, সাকিব জৈব সুরক্ষা বলয়ে প্রবেশের আগ পর্যন্ত তার নিরাপত্তার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এই গানম্যানকে। এমনকি বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডারকে বাসা থেকে নিয়ে এবং দিয়ে আসার সময়েও থাকবেন এই নিরাপত্তাকর্মী। এরপর সময় পেরিয়ে গেছে আরও ৩দিন। শনিবার বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপকে সামনে রেখে জৈব সুরক্ষা বলয়ে প্রবেশ করবেন সব ক্রিকেটার। তাই এদিনই শেষবারের মতো সাকিবের নিরপত্তায় ছিলেন এই গ্যানম্যান। তবে গ্যানম্যান থাকলেও তার সঙ্গে ছিল না কোন গান!

শনিবার সকাল ১০টায় মিরপুরের একাডেমি মাঠে অনুশীলনে আসে জেমকন খুলনা। শুরুতে দলের সঙ্গে সাকিবকে না দেখা গেলেও ২০-২৫মিনিট পর একাডেমি মাঠে আসেন সাকিব। সে সময় তার পেছনে বন্ধুকবিহীন সেই নিরাপত্তাকর্মীকেও দেখা যায়। একাডেমি মাঠে সেই নিরাপত্তাকর্মীর প্রবেশের অনুমতি না থাকলেও ভিন্ন দুজনকে পুরো একাডেমি মাঠের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। অনুশীলন শেষে সাকিবের ড্রেসিং রুমে ফিরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত বন্দুক ছাড়াই তার সঙ্গে ছিলেন সেই নিরাপত্তাকর্মী।

গেল শনিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি দিয়েছিলেন মহসিন তালুকদার নামে এক যুবক। এর জের ধরে মঙ্গলবার সেই যুবককে গ্রেফতার করে র‍্যাব। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সাকিবের নিরাপত্তার জন্য একজন গ্যান ম্যান নিয়োগ দেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। যিনি বাংলাদেশের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো নিরাপত্তায় নিয়জিত থাকেন।

কলকাতায় কালীপূজার একটি অনুষ্ঠানে সাকিবের উপস্থিতির কারণে তাঁকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি দেন সেই যুবক। হুমকির পাওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে সাকিব নিজের ইউটিউব চ্যানেলে এসে ক্ষমা চেয়েছিলেন। যদিও ওই ভিডিওর পর ভোর ৬টা ৪ মিনিটে আবারও একটি লাইভে হাজির হয়ে উত্তেজিত ভিডিওর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে ওই যুবক। তবে সে সময় তিনি সাকিবকে জাতির উদ্দেশে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান। এরপরই সাকিব নিজের ইউটিউব চ্যানেলে এসে ক্ষমা চেয়েছিলেন।

 

 

অর্থসূচক/এএইচআর