মুম্বাইকে প্লে অফে নিলো চেন্নাই

0
82

বাংলায় একটা প্রবাদ রয়েছে। ওস্তাদের মাইর শেষ রাতে। এই প্রবাদটির সত্যতা বাস্তবে দেখিয়ে দিলেন চেন্নাই সুপার কিংসের অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা। বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) তার কল্যাণে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে শ্বাসরুদ্ধকর এক জয় পেয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে শেষ বলের রোমাঞ্চে কলকাতাকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে চেন্নাই। কলকাতার দেয়া ১৭৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেটের খরচায় ১৭৮ রান তুলে মাঠ ছাড়ে চেন্নাই।

চেন্নাইয়ের এই জয়ে চলতি আসরের প্রথম দল হিসেবে দুই ম্যাচ বাকি থাকতেই প্লে অফ নিশ্চিত করেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। যদিও বুধবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে ৫ উইকেটে হারানোর পরই প্লে-অফ প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল চারবারের চ্যাম্পিয়নদের। এরপর অপেক্ষা ছিল শুধুই আনুষ্ঠানিকতার। যেটা নিশ্চিত হয় কলকাতার হারের মধ্য দিয়ে।

পয়েন্টের হিসেবে ১২ ম্যাচ শেষে মুম্বাইয়ের পয়েন্ট ১৬। অপরদিকে পাঁচ নম্বরে থাকা কলকাতার পয়েন্ট ১২। মরগানবাহিনীর ম্যাচ বাকি একটি। এই এক ম্যাচ জিতলেও মুম্বাইকে ধরে ফেলা সম্ভব নয়। ৬, ৭, এবং ৮ নম্বরে অবস্থান করা বাকি তিন দলের পয়েন্ট ১০ করে। তাদের পক্ষেও আর মুম্বাইকে পেছনে ফেলা সম্ভব নয়। আর এই হিসেবেই প্লে অফ নিশ্চিত হয়েছে মুম্বাইয়ের।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) কলকাতার দেয়া ১৭৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা বেশ ভালোই করে চেন্নাই। দুই উদ্বোধনি ব্যাটসম্যান শেন ওয়াটসন এবং ঋতুরাজ গায়কোয়াদ শুরুতেই এনে দেন ৫০ রান। ব্যক্তিগত ১৪ রান করে ওয়াটসন বিদায় নিলে আম্বাতি রাইড়ুকে নিয়ে ঝড়ো ইনিংস শুরু করেন গায়কোয়াদ।

দলীয় ১১৮ রানে রাইড়ু এবং ১২১ রানে ধোনি বিদায় নিলেও উইকেট কামড়ে বসে থাকেন ঋতুরাজ। কিন্তু ৫৩ বলে ৭২ রানের ইনিংস খেলে কামিন্সের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। এরপর বাকি কাজটা সারেন রবীন্দ্র জাদেজা এবং স্যাম কারান।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য চেন্নাইয়ের দরকার ছিল ১০ রান। কমলেশ নাগরকোটির প্রথম চার বলে মাত্র তিন রান সংগ্রহ করেন জাদেজা-কারান। একটা সময় ম্যাচ অনেকটাই হাতের বাইরে চলে যাওয়ার উপক্রম হয়ে উঠে চেন্নাইয়ের। কিন্তু সেই মুহূর্তে ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হন জাদেজা। ওভারের পঞ্চম বল ডিপ মিড উইকেট দিয়ে বল সীমানার বাহিরে পাঠান এই অলরাউন্ডার। শেষ বলেও বাউন্ডারি হাঁকিয়ে চেন্নাইকে অবিশ্বাস্য জয় উপহার দেন তিনি। আইপিএলে শেষ বলে ছক্কা মেরে ম্যাচ জেতানোর দশম ঘটনা এটি। আর এর ভেতর চারটিই হয়েছে কলকাতার বিপক্ষে।

এর আগে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে নিতিশ রানার ৬১ বলে ৮৭ রানের ইনিংসে ভর করে ৫ উইকেটের খরচায় ১৭২ রান তোলে কলকাতা।

 

অর্থসূচক/এএইচআর