এবার শার্লি হেবদোতে এরদোয়ানের কার্টুন

0
70
Turkish President Recep Tayyip Erdogan
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান

মাক্রোঁ বনাম এরদোয়ানের প্রবল বিরোধের মধ্যেই শার্লি হেবদোতে পত্রিকায় বের হলো তুরস্কের প্রেসিডেন্টের কার্টুন। প্রচ্ছদ কার্টুনই এরদোয়ানকে নিয়ে। মহানবী হযরত মোহাম্মদ(সাঃ)-র কার্টুন প্রকাশ করে শার্লি হেবদো পত্রিকাই বিতর্কের ঝড় তুলেছিল। সেই কার্টুন দেখিয়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতা বলে দাবি করেছিলেন শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটি। পরে তাকে হত্যা করেছে ১৯ বছর বয়সী চেচেন যুবক।

এরপর ফরাসি প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁ জানিয়েছিলেন, তিনি মত প্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে। এই অবস্থান থেকে পিছিয়ে আসার কোনো সম্ভাবনা নেই। তিনি বলেন, এ ধরনের কার্টুন প্রকাশ অব্যাহত থাকবে।

এরদোয়ানের মত ছিল, মাক্রোঁ ইসলামকে অপমান করতে পারেন না। তিনি বলেছিলেন, কেউ যেন ফরাসি জিনিস না কেনেন। তারপর আরব দুনিয়ার অনেক দেশই ফরাসি জিনিস বয়কট করেছে।

তবে এই কার্টুন নিয়েই ডাচ দক্ষিণপন্থী রাজনীতিবিদ উইল্ডার্সের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছেন এরদোয়ান। তুরস্কে এই ধরনের অপরাধে দুই বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। গত শনি ও সোমবার উইল্ডার্স দুইটি কার্টুন শেয়ার করেছিলেন। একটিতে দেখা যাচ্ছে, এরদোয়ানে বোমার মতো একটি টুপি পরে আছেন। তার নীচে লেখা ‘সন্ত্রাসবাদী’। অন্যটিতে তুরস্কের পতাকা নিয়ে ডুবন্ত জাহাজের ছবি। তার ক্যাপশন হলো, ‘বাই বাই এরদোয়ানে, তুরস্ককে ন্যাটো থেকে কিক করে বের করে দেয়া হোক’।

এছাড়া শার্লি হেবদোর প্রচ্ছদে প্রকাশিত আরও একটি ছবিতে দেখা যায়, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট একটি সাদা টি-শার্ট এবং অন্তর্বাস পরে বসে আছেন। পাশে হিজাব পরিহিত এক নারী মদের পসরা সাজিয়ে অর্ধ-নগ্ন অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছেন।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ইব্রাহীম কালিন টুইটারে বলেছেন, ফরাসী ম্যাগাজিনে আমাদের প্রেসিডেন্টকে জড়িয়ে যে চিত্র প্রকাশ করা হয়েছে; যেখানে কোনও বিশ্বাস, পবিত্রতা এবং মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা নেই, আমরা দৃঢ়ভাবে এর নিন্দা জানাই। তারা কেবল নিজেদের অশ্লীলতা এবং অনৈতিকতার প্রদর্শন করছে। কারও ব্যক্তিগত অধিকারের ওপর আক্রমণ হাস্যরস কিংবা মত প্রকাশের স্বাধীনতা হতে পারে না।

তুরস্কের প্রেসিডেন্টের যোগাযোগবিষয়ক পরিচালক ফাহরেত্তিন আলতুন বলেন, ফরাসী প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁর মুসলিমবিরোধী অ্যাজেন্ডা ফল দিচ্ছে।

এদিকে মাক্রোঁ বনাম এরদোয়ানে লড়াই আর শুধু কার্টুন বা একে অন্যের বিরুদ্ধে কথা-যুদ্ধে সীমাবদ্ধ নেই। ফ্রান্স ইইউ-কে জানিয়েছে, তুরস্কের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ, এরদোয়ানে ফরাসি জিনিস বয়কটের ডাক দিয়েছেন। তিনি মাক্রোঁর মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলে তাঁকে অপমান করেছেন।

ফ্রান্সের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, ফ্রান্স ঐক্যবদ্ধ, ইউরোপও তাই। ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের পরবর্তী বৈঠকে ক্ষমতার ভারসাম্যকে আরও শক্তিশালী করার জন্য সিদ্ধান্ত নিতে হবে। তুরস্ক যাতে ইউরোপীয় মূল্যবোধ ও স্বার্থ মেনে চলে তার ব্যবস্থা করতে হবে।

আবার তুরস্কের পর্লামেন্টে মাক্রোঁর বিবৃতির তীব্র নিন্দা করা হয়েছে। চারটি প্রধান রাজনৈতিক দল একযোগে জানিয়েছে, মাক্রোঁ মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে যা বলেছেন, তাতে প্রবল বিরোধ দেখা দিতে পারে। তার প্রভাব সব ধর্মের লোকেদের উপরে পড়বে। সূত্র: এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিডব্লিউ

 

অর্থসূচক/এএইচআর