শনিবার, অক্টোবর ৩১, ২০২০
Home App Home Page বিসিএস ও বেকারত্ব নিয়ে সোহানের ব্যতিক্রমী গান

বিসিএস ও বেকারত্ব নিয়ে সোহানের ব্যতিক্রমী গান

বিসিএস ও বেকারত্ব নিয়ে সোহানের ব্যতিক্রমী গান

নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে এই গানের বিষয়বস্তু কী। হ্যাঁ, বিসিএস ও বেকারত্ব। প্রতিটি তরুণের কাছে বেকারত্ব এক অভিশাপ যেন! পড়াশোনা শেষে একটা সরকারি চাকরি না জোটাতে পারা; জীবনের সব ব্যর্থতা যেন এখানেই। চাকরি না থাকার অজুহাতে চলে যায় ভালোবাসার মানুষও। তারপর তরুণ-যুবকের মাথায় যেন ভেঙে পড়ে হতাশার আকাশ। এই বিষয়বস্তুকে কাব্যকথায় সাজিয়েছেন সোহান। তারপর এতে সুর দিয়ে গেয়েছেন।

দীর্ঘদিন ধরে গানের চর্চা করে আসছেন সোহান। তবে এবারই প্রথম নিজের মৌলিক গান নিয়ে হাজির হয়েছেন তিনি। ইতোমধ্যে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে গানটি প্রকাশ করেছেন সোহান।

‘ধুর বসে কী করছি, সেই সেইম রুটিনে দিন চলে যায়, ভালো লাগে না/ চাকরিটা হয়ে গেলে বলছি, তাকে দেখিয়ে দেবো মন জোটাতে, সময় লাগে না/ ও মা তোমার ছেলে আমি ডিপ্রেশনে থেকে বলছি/একটা মেয়ে না চলে গেছে তোমার ছেলে বেকার বলে/’- এমন কথায় সাজানো হয়েছে গানটি।

এই গানের সঙ্গীতায়োজন করেছেন সোহান নিজেই। তবে মিক্স-মাস্টারিং করেছেন কানাডার গিসলেইন ব্রাইন্ডআমোর। গানটি আপাতত অডিও আকারে প্রকাশিত হয়েছে। সোহান জানালেন, শিগগির ভিডিও আকারেও প্রকাশিত হবে।

‘বিসিএস ও ডিপ্রেশন’ গান নিয়ে সোহান বলেন, সঙ্গীত নিয়ে দীর্ঘ দিনের চর্চা। এত দিন অন্তরালে থেকে টুকটাক কাজ করেছি। আর নিজের জন্য গান বানিয়েছি। সেই গানের ভাণ্ডার থেকে একটি গান প্রকাশ করলাম। তরুণদের জীবনের তিক্ত বাস্তবতা আমি তুলে ধরতে চেয়েছি এই গানে। বেকারত্ব নিয়ে আগেও গান হয়েছে, তবে আমি একটু ভিন্নভাবে বিষয়টা উপস্থাপন করেছি। গানটি শুনলেই শ্রোতারা সেটা বুঝতে পারবেন।

এদিকে সোহানের গান শুনে মুগ্ধ হয়েছেন দেশের সঙ্গীতের ম্যাজিশিয়ান খ্যাত হাবিব ওয়াহিদ। তিনি তার অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে গানটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘মাঝে মাঝে নতুন মিউজিক কম্পোজার/সিঙ্গারদের মধ্যে কেউ কেউ তাদের গান আমাকে শোনায়, আমার মতামত জানতে চায়। তাদেরই একজন সোহান। সম্প্রতি এই গানটি ওর নিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করেছে। আমি গানটি উপভোগ করেছি, তাই আপনাদের সাথেও শেয়ার করলাম। শুভকামনা সোহান।’

অর্থসূচক/এএ/এমএস