গ্রেফতারের পর সাহাবউদ্দিনের এমডিও বলেন তিনি ‘করোনায় আক্রান্ত’

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
130

প্রতারণার মামলায় গ্রেফতারের পর সাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এমডি ফয়সাল আল ইসলামকে গুলশান থানায় হস্তান্তর করেছে র‌্যাব। সোমবার (২০ জুলাই) তাকে বনানীর একটি হোটেল থেকে গ্রেফতারের সময় থেকে র‌্যাব হেফাজতে নেয়া পর্যন্ত একটি কথা বারবার বলতে থাকেন এমডি ফয়সাল। তিনি বলছিলেন, ‘আমি করোনায় আক্রান্ত’।

এক পর্যায়ে গতকালই তার নমুনা সংগ্রহ করিয়ে করোনা টেস্ট করায় র‌্যাব। তবে আজ মঙ্গলবার টেস্টের ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।

আজ মঙ্গলবার (২১ জুলাই) দুপুরে র‌্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, ফয়সালকে গ্রেফতারের পর তিনি বারবার করোনায় আক্রান্ত বলে দাবি করেন। গতকালই তার নমুনা সংগ্রহ করে, তা পরীক্ষা করা হয়। আজ (মঙ্গলবার) সেই পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। রিপোর্ট পাওয়ার পরই তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এর আগে প্রতারণার দায়ে গ্রেফতার রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে নিজেকে করোনা আক্রান্ত বলে দাবি করেছিলেন।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান জানান, সাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এমডি ফয়সাল আল ইসলামকে বিকালে আদালতে নেওয়া হবে। তার সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

গত রোববার (১৯ জুলাই) করোনা টেস্টের অনিয়ম নিয়ে হাসপাতালটিতে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষার পর করোনার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও পজিটিভ বলে ভর্তি রেখে মোটা অঙ্কের বিল আদায় করার প্রমাণ পাওয়া যায়। এ ছাড়া এখানে কোভিড-১৯ এর ভুয়া রিপোর্ট দেয়া, হাসপাতালের লাইসেন্স শেষ হয়ে যাওয়া, অপারেশন থিয়েটারে মেয়াদোত্তীর্ণ সার্জিক্যাল সামগ্রী, বিক্রয়নিষিদ্ধ ওষুধসহ নানা অনিয়ম পাওয়া যায়। হাসপাতালটিকে ২ লাখ টাকার জরিমানা করা হয়।

গতকাল সোমবার বিকালে রাজধানীর গুলশান থানায় ফয়সাল আল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়। এই মামলায় আরও দুজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তারা হলেন, হাসপাতালটির সহকারী পরিচালক আবুল হাসনাত ও ইনভেন্টরি অফিসার শাহরিজ কবির।

অর্থসূচক/কেএসআর