লিবিয়া হত্যাকাণ্ডের ১০ দিনেও সন্ধান নেই ভৈরবের দুই যুবকের

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
122

লিবিয়ায় মানবপাচারকারীদের হাতে ২৬ বাংলাদেশী হত্যার ১০দিন পেরিয়ে গেলেও কিশোরগঞ্জের ভৈরবের দুই যুবকের কোন সন্ধান মিলছে না। তারা মারা গেছেন, না জীবিত আছেন-কোনো খবর পাচ্ছেন পরিবারের লোকজন। ফলে অনিশ্চিত শংকায় স্বজনদের দিন কাটছে। করছেন বুকফাটা আহাজারি।
তারা হলেন, শহরের জগন্নাথপুর এলাকার ফল ব্যবসায়ী আসাদ মিয়ার ছেলে বিজয় মিয়া এবং একই গ্রামের মৃত আলী আকবরের ছেলে ইসার উদ্দিন। আসলে তারা বেঁচে আছেন, না মারা গেছেন- জানতে চান স্বজনরা। সেখানকার নিহত এবং আহতদের তালিকায় তাদের কারো নাম না থাকায় দিক-বেদিক ছুটছেন তাদের খোঁজে।
নিখোঁজ হওয়া যুবকদের স্বজনরা জানান, ভৈরব পৌর শহরের জগন্নাথপুর গ্রামের দালাল জাফরের কথায় সংসারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে অবৈধ পথে লিবিয়ায় পাড়ি জমান একই গ্রামের ইসার উদ্দিন ও বিজয় মিয়া। জাফরের কথা মতো তারা প্রত্যকে সাড়ে চার লাখ করে টাকা দিয়ে লিবিয়া যান। সবশেষ পরিবারের কাছে ২৫ মে একটি ভয়েজ রেকর্ড পাঠায় তারা। রেকর্ডে তারা দু’জনেই আবারও ১০ লাখ টাকা করে পাঠাতে বলেন। অন্যথায় তাদেরকে মেরে ফেলা হবে বলেও জানায়।
সন্তানের এমন আকুতিতে টাকা যোগার করতে যখন স্বজনরা দিশেহারা, ঠিক তখনই অর্থাৎ এর তিনদিন পরেই মানবপাচারকারী চক্রের সদস্যদের গুলিতে ২৬ জন বাংলাদেশী নিহত হওয়ার খবর পান তারা। এ ঘটনার পর থেকে ইসার উদ্দিন এবং বিজয়ের কোন খোঁজ মিলছে না।
ভৈরব উপজেলা প্রশাসনের হাতে ভৈরবের হতাহতদের নামের তালিকা আসলেও সেই তালিকায় নিখোঁজ এই দুইজনের নাম নেই। ফলে উৎকণ্ঠায় পড়েছেন ইসার উদ্দিন এবং বিজয়ের স্বজনরা।
লিবিয়াতে থাকা আত্মীয় ও স্থানীয় পরিচিতজনদের কাছে যোগাযোগ করেও নিখোঁজ সন্তানের খোঁজ পাননি বলে জানালেন বিজয় মিয়ার বাবা আসাদ মিয়া ও মা পেয়ারা বেগম। যেকোনো কিছুর মূল্যে তারা তাদের সন্তানের সন্ধান চান। ফিরে পেতে চান তাদের কাছে।
নিখোঁজ হওয়া দু’জনের সঠিক তথ্য নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনাসহ দালালদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা আমিনূল ইসলাম ও দরবারী কামরুজ্জামান।
এদিকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, তিনি নিখোঁজ দুই যুবকের সন্ধানে খবরা খবর নিচ্ছেন। তিনি ইতোমধ্যে লিবিয়ার ত্রিপলিতে কর্মরত বাংলাদেশী কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবগত করিয়েছেন।