সংসার চালাতে আইনজীবী বুনছেন ঝুড়ি!

0
85

ভারতে করোনার জেরে লকডাউনে মার্চের শেষ থেকে বন্ধ আদালত। জীবিকার প্রয়োজনে তাই আইনজীবী বুনছেন ঝুড়ি। ভারতের চেন্নাইয়ের প্রত্যন্ত গ্রামের বাসিন্দা কে উত্তমকুমারন। পরিবারে তিনিই প্রথম স্নাতক ব্যক্তি। আইনজীবী হওয়ার জন্য রাত জেগে লন্ঠনের আলোয় পড়াশোনা করতেন।

মালাই কুরুভার সম্প্রদায়ের এই বাসিন্দা নিজের তাগিদেই পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। ২০১০ সালে তিনি স্নাতক হন। এরপর পাট্টুকোটাই আদালতে প্র্যাকটিসও শুরু করেন। কিন্তু বাদ সাধল করোনা। বাধ্য হয়ে ফিরতে হল বাঁশের ঝুড়ি বোনার কাজে।

লকডাউনের সময় উত্তম কুমারনের হাতে ছিল মোটে ১০ হাজার টাকা। কিন্তু সেই টাকায় স্ত্রী আর ছেলেসহ তিন জনের সংসার চালানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। ফলে কাজ খুঁজতে শুরু করেন। কিন্তু তিনি করতে পারেন এ রকম কোন কাজ খুঁজে পাচ্ছিলেন না। শেষ পর্যন্ত দেখলেন ঝুড়ি বোনা যেতে পারে।

দ্বাদশ শ্রেণির পর তিনি তার বাবাকে ঝুড়ি বুনতে সাহায্য করতেন। ভেবে দেখলেন, বাঁচতে হলে পরিবারের সেই পুরনো কাজই তাকে অবলম্বন করতে হবে। শুরু হল ঝুড়ি বোনার কাজ। সপ্তাহে ১২টা করে ঝুড়ি বানান। আর সেই ঝুড়ি সারা সপ্তাহ ধরে বিক্রি করে আয় হয় ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা। কিন্তু তাতেও চলছে না সংসার। আইনজীবী হিসেবে কাজ করে তিনি প্রতি মাসে প্রায় ২৫০০০ টাকা রোজগার করতেন।

উত্তম কুমারন আরও জানান, তার গ্রামে প্রায় দুই লাল মানুষ আছেন। বেশিরভাগই ঝুড়ি বোনার কাজ করে। কিন্তু এদের উন্নতির জন্য সরকার থেকে কখনও কোনরকম সাহায্য আসেনি। এই মানুষগুলোকে বাঁচাতে অবিলম্বে সরকারি সাহায্য প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি। সূত্র: এই সময়

অর্থসূচক/এসএস/এএইচআর