আলোচনায় জার্মানির ভাইরাস ‘গুরু’

0
117

তাঁর নাম ক্রিস্টিয়ান ড্রস্টেন৷ জার্মানির সেরা ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে কাজ করেন তিনি৷ তাঁর দলই বিশ্বে প্রথম করোনার টেস্ট কিট উদ্ভাবন করেছিল৷ সেই থেকে করোনা ভাইরাসের একজন শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছেন ড্রস্টেন৷ টেলিভিশনে তাঁকে নিয়মিত দেখা গেছে৷ বার্লিনের হুমবোল্ট ও ফ্রি ইউনিভার্সিটির অধীনে থাকা শারিটি ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে কাজ করেন তিনি৷ চিকিৎসাবিদ্যায় এখন পর্যন্ত জার্মানির যতজন নোবেল পেয়েছেন, তার অর্ধেকের বেশি নোবেলজয়ী শারিটিতে কাজ করতেন৷ করোনা ভাইরাস নিয়ে জ্ঞানের কারণে অনেকে ড্রস্টেনকে ‘গুরু’ বলে ডাকেন৷

করোনা মোকাবিলায় বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে সারাবিশ্বে প্রশংসিত জার্মান সরকারও ড্রস্টেনের পরামর্শ গুরুত্ব দিয়ে শুনেছে৷ কখন কড়াকড়ি আরোপ করতে হবে, কখন, কীভাবে তা তোলা যেতে পারে, এসব ব্যাপারে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন ড্রস্টেন৷ তবে কড়াকড়ি তোলার ক্ষেত্রে সরকারের ধীরগতির প্রতিবাদে সম্প্রতি বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ বিক্ষোভকারীদের অনেকের ধারনা ড্রস্টেনের পরামর্শ শুনেই সরকার এমন করছে৷

সম্প্রতি ড্রস্টেনের দলের করা এক গবেষণার প্রাথমিক ফলাফলে শিশুরাও বড়দের মতো সহজে করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে বলে দাবি করা হয়৷ জার্মানির সবচেয়ে পঠিত ট্যাবলয়েড ‘বিল্ড’ ড্রস্টেনদের এই গবেষণার ফলাফল নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে৷ এ বিষয়ে কয়েয়া জানাতে ড্রস্টেনকে এক ঘণ্টা সময় দিয়ে একটি ইমেল করেন বিল্ডের এক প্রতিবেদক৷

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে টুইট করেন ড্রস্টেন৷ তিনি লেখেন, আমার আরো ভালো কাজ করার আছে৷ টুইটের সঙ্গে ঐ সাংবাদিকের পাঠানো ইমেলের স্ক্রিনশটও শেয়ার করেন তিনি৷ স্ক্রিনশটে সাংবাদিকের ফোন নাম্বার দেখা গেছে৷ এছাড়া ড্রস্টেন তাঁদের গবেষণার ফলাফলের পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়ে স্পিগেল ম্যাগাজিনকে বলেন, আসলে বৈজ্ঞানিক সমস্যা বোঝায় বিল্ডের কোন আগ্রহ ছিল না৷

এদিকে, বিল্ড পত্রিকায় ড্রস্টেনের গবেষণার ফল নিয়ে যে বিজ্ঞানীরা সমালোচনামূলক মন্তব্য করেছিলেন, তাঁরা দাবি করেন, গবেষণার মান উন্নত করার লক্ষ্যে তাঁরা এমন মন্তব্য করেছেন৷ ড্রস্টেনের টুইটের পর লকডাউনের সমালোচক একদল সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারী তাঁর বিরুদ্ধে প্রচারণা শুরু করে৷ তারা সামাজিক মাধ্যমে একটি ছবি ছড়াতে শুরু করে যেখানে নাৎসি ডাক্তার ইওসেফ মেঙ্গেলের সঙ্গে ড্রস্টেনের মুখ দেখা যাচ্ছে৷ এই ছবির ক্যাপশনে লেখা হয়, ‘বিশ্বাস কর, আমি একজন ডাক্তার৷’

এছাড়া একটি হুমকিমূলক প্যাকেটও পেয়েছেন ড্রস্টেন৷ প্যাকেটে একটি তরল ক্যাপসুল পাঠিয়ে বলা হয়, ‘এটা পান কর – তাহলে তুমি রোগ-প্রতিরোধী হয়ে উঠবে৷’

এদিকে জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার বলেছেন, ড্রস্টেনকে হুমকি দেওয়ার বিষয়ে নজর রাখা হচ্ছে৷ সূত্র: ডিডব্লিউ

অর্থসূচক/এএইচআর