ডেল্টা হসপিটালের কাট-অফ প্রাইস ১১ টাকা

বিনিয়োগকারীরা আইপিওতে পাবেন ১০ টাকা দরে

0
196

বুক বিল্ডিং পদ্ধতির আইপিওতে বাজারে আসছে ডেল্টা হসপিটাল লিমিটেড। ইতোমধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে কোম্পানিটির শেয়ার বিক্রি শেষ হয়েছে। তাদের জন্য সংরক্ষিত সর্বশেষ শেয়ার বিক্রি হয়েছে ১১ টাকা দরে, যা কাট-অফ প্রাইস হিসেবে চিহ্নিত।

বিধি অনুসারে, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য শেয়ারের প্রস্তাবিত মূল্য হয় কট-অফ প্রাইসের ১০ শতাংশ কম। ডেল্টা হসপিটালের ক্ষেত্রে শেয়ার প্রতি ১.১০ টাকা কমে বা ১০ টাকা দরে শেয়ার কেনার জন্য আইপিওতে আবেদন করতে পারবেন তারা।

বুক বিল্ডিং পদ্ধতির নিয়ম অনুসারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রি করার জন্য গত ২২ মার্চ, রোববার বিকাল ৫টায় শুরু হয়েছিল বিডিং বা নিলাম। এই ৭২ ঘন্টা চলার পর ২৫ মার্চ, বুধবার শেষ হয়। কিন্তু তার মধ্যে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি শেষ হয়ে যাওয়ায় কাট-অফ প্রাইস নির্ধারণ প্রক্রিয়া শেষ করতে পারেনি স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ।

রোববার (৩১ মে) পুঁজিবাজার ফেল চালু হওয়ার পর কর্তৃপক্ষ ডেল্টা হসপিটালের কাট-অফ প্রাইস ঘোষণা করে।

ডেল্টা হসপিটালের নিলামে সর্বোচ্চ থেকে কাট-অফ প্রাইস পর্যন্ত দর প্রস্তাবকারীরা,তাদের প্রস্তাবিত দরে ৩১ কোটি ৫৪ লাখ ২৯ হাজার টাকার শেয়ার কিনবেন। আর কাট-অফ প্রাইস থেকে ১০ শতাংশ কম দরে বা প্রতিটি ১০ টাকা করে ১৮ কোটি ৪৫ লাখ ৭১ হাজার টাকার শেয়ার প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ইস্যু করা হবে।

জানা গেছে, ডেল্টা হাসপাতালের শেয়ারের নিলামে প্রতি শেয়ারের জন্য সর্বোচ্চ ৪৬ টাকা পর্যন্ত দর জমা পড়ে। বিদ্যমান নিয়ম অনুসারে, যে প্রতিষ্ঠান যে দামে শেয়ার কেনার প্রস্তাব দেবে, সে দামেই ওই শেয়ার কিনতে হবে।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির বিডিংয়ের অনুমোদন দেয়।

ডেল্টা হসপিটাল লিমিটেড পুঁজিবাজার থেকে ৫০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। যা দিয়ে যন্ত্রপাতি ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করা হবে।

৩০ জুন, ২০১৯ তারিখে সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস ছিল ২ টাকা ১০ পয়সা। পুনর্মূল্যায়ন সঞ্চিতিসহ আর ৩০ জুন, ২০১৯ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৪৫ টাকা ৮৪ পয়সা, পুনর্মূল্যায়ন সঞ্চিতি ছাড়া এনএভিপিএস ছিল  দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৬২ পয়সা।

কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে প্রাইম ফাইন্যান্স ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড এবং রেজিস্টার টু দ্য ইস্যুর দায়িত্বে রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট।