করোনায় আক্রান্ত মোস্তফা গ্রুপের চেয়ারম্যান

0
43

দেশের একটি বড় শিল্প গোষ্ঠি চট্টগ্রামের মোস্তফা গ্রুপের চেয়ারম্যান হেফাজতুর রহমান (৬৫) নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন।শনিবার তার শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

জানা গেছে,শুক্রবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাটে অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) এর ল্যাবে তার নমুনা পাঠানো হয়েছিল। শনিবার পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।


প্রিয় পাঠক,করোনাভাইরাস সংক্রান্ত দেশ-বিদেশের নির্বাচিত নিউজ ও টিপস এখন থেকে পাওয়া যাবে আমাদের

ফেসবুক গ্রুপ Corona: News & Tips এ। গ্রুপটিতে যোগ দিয়ে সহজেই থাকতে পারেন আপডেট।


এক সময়ের বেশ সফল শিল্প গোষ্ঠি মোস্তফা গ্রুপের অবস্থা অবশ্য এখন বেশ নাজুক। গ্রুপের বেশিরভাগ ইউনিট এখন বন্ধ।গ্রুপের কর্ণধার ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মাথার উপর ঝুঁলছে ঋণ খেলাপীর মামলা।মামলার সংখ্যাও কম নয়,প্রায় তিন ডজন।গ্রুপটির কাছে ৩১ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পাওনা প্রায় দেড় হাজার দোটি টাকা।

গত বছরের জুনে আর্থিক প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন ক্যাপিটালের করা চেক প্রতারণার মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কিছুদিন জেলেও ছিলে গ্রুপটির চেয়ারম্যান।

হেফাজতুর রহমান বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছিলেন,ছিলেন ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের পরিচালকও।একসময় চিনি,ভোজ্য তেলসহ বিভিন্ন ভোগ্যপণ্যের আমদানিকারকও ছিলেন।

ভোগ্য পণ্যের আমদানিতে বড় ধরা খেয়ে মোস্তফা গ্রুপের পতন শুরু হয় বলে জানা গেছে। এছাড়া চট্টগ্রামের আরও কয়েকটি শিল্প গ্রুপের মত এই গ্রুপও ব্যবসার জন্য নেওয়া ঋণের টাকা অবৈধভাবে সরিয়ে নিয়ে বিপুল জমি কিনেছে। আর এই ফাঁদে পড়ে অবস্থা হয়েছে আরও নাজুক। কারণ ২০১০ সালের পর থেকে চট্টগ্রামে জমির দাম কেবলই কমেছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৫২ সালে ভোগ্যপণ্য দিয়ে মোস্তফা গ্রুপের যাত্রা শুরু। এ গ্রুপের উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে শিপব্রেকিং, ভোজ্যতেল, রাবারবাগান, চা-বাগান, আমবাগান, কাগজ, মৎস্য, স্টিল, পরিবহন, শিপিং, সিকিউরিটিজ ও পোশাক কারখানা।

মোস্তফা গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা লোহাগাড়ার সন্তান মোস্তাফিজুর রহমানের মৃত্যুর পর তার বড় ছেলে হেফাজতুর রহমান গ্রুপের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।