রামেক হাসপাতালে সাংবাদিকের চিকিৎসা করেননি ডাক্তাররা

0
119
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ

রাজশাহী মেডিকেল কলেজরাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে স্থানীয় দৈনিক নতুন প্রভাত পত্রিকার ফটো সাংবাদিক গুলবার আলী জুয়েলকে চিকিৎসা না দিয়ে ফেরত দিলেন ইন্টার্নি চিকিৎসকরা।

গত রোববার তাকে রামেক হাসপাতালের ৩১নং ওয়ার্ডে ভর্তি হন। দুইদিন হাসপাতালে থাকার পর কোনো চিকিৎসা না পেয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি হাসপাতাল ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন। বিশেষ করে ইন্টার্নি চিকিৎসকরা তার ভর্তির কাগজে সাংবাদিক লিখা দেখে তাকে দেখাশোনা বন্ধ করে দেন। সোমবার তার ভাঙ্গা পায়ের অপারেশন করে রড বের করার কথা ছিল।

এ ঘটনার প্রতিবাদে আগামিকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিকরা। বুধবার দুপুরে ‘সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির’ এক জরুরি বৈঠক শেষে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ-সম্পাদক মামুন-অর-রশিদ।

প্রসঙ্গত, গত ২ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালেয়ে সান্ধ্যকালীন কোর্স বাতিলের দাবিতে আন্দোলন চলাকালে শিক্ষার্থীদের মারপিটে তার এক পা ভেঙ্গে যায়। তিনি রামেক হাসপাতালের ৩১ নং ওয়ার্ডে ভর্তি হলে তার পায়ের অপারেশন করে রড লাগিয়ে দেয় চিকিৎসকরা। ১৫ দিন হাসপাতালে থাকার পর তিনি চিকিৎসকের পরামর্শে বাড়ি চলে যান। এর পর চিকিৎসকের পরামর্শে জুয়েল গত রোববার আবারও হাসপাতালে ভর্তি হন।

ফটোসাংবাদিক জুয়েল জানান, চিকিৎসকদের দেওয়া পরামর্শ অনুযায়ী তিনি গত রোববার রামেক হাসপাতালে ভর্তি হন। তিনি দুইদিন হাসপাতালে থাকার পর কোনো চিকিৎসক তাকে দেখাশোনা করেনি। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ডা. দেবাশিষের পরামর্শে তাকে ১ নং ওয়ার্ডে রক্ত ও ইসিজি করার জন্য পাঠানো হয়। ১ নং ওয়ার্ডে গিয়ে জুয়েল তার ভর্তির কাগজপত্র এক নার্সকে দেন। ওই নার্স ভর্তির কাগজ এক ইন্টার্নি চিকিৎসককে দিলে তিনি জুয়েলকে জানান, এই হাসপাতালে সাংবাদিকদের কোনো চিকিৎসা দেওয়া হবে না। আপনি ঢাকায় গিয়ে চিকিৎসা নেন। ফলে জুয়েল হাসপাতাল ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন।

এমআই/সাকি