করোনা রুখতে স্যানিটাইজার চেয়ে সাবান ভালো

0
54

বিশ্বজুড়ে আতঙ্কিত এই প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস নিয়ে। করোনা আশঙ্কায় নিজেকে সুরক্ষিত রাখাটাও অনেক জরুরি। এই সংকটময় দিনে যে যার মতো নিজেকে নিয়ে ভাবছে। সাবান-হ্যান্ডওয়াস কিংবা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করছেন। আসলে এগুলো করলেই কি আপনার হাত পরিষ্কার থাকছে? করোনা সতর্কতার এই অন্যতম প্রধান সমাধান নিয়েও চলছে নানা সমালোচনা ও বিভান্তি।

কাজের রুটিন যা-ই থাক না কেন, বার বার উঠে ঘন ঘন হাত ধোয়ার ক্ষেত্রে অনেকেই করছেন অলসতা। বরং তারা কাছেই নিয়ে বসছেন হ্যান্ড স্যানিটাইজার। বাজারেও মিলছে না তেমন স্যানিটাইজার। তা নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই। কিন্তু হাত ধোয়ার পরিবর্তে ঘন ঘন স্যানিটাইজারেই কি মিলবে পরিত্রাণ? এমন প্রশ্নের উত্তর মিলেছে ভারতীয় আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে। চলুন তবে জেনে নেই বিশেষজ্ঞদের মতামত-

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ সুবর্ণ গোস্বামীর মতে, ‘হ্যান্ড স্যানিটাইজার কখনো হাত ধোয়ার বিকল্প হতে পারে না। সাবানও এর চেয়ে ভাল বিকল্প। সাবান বা জীবাণুনাশক হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুলে হাতের তালুর প্রায় ৯০-৯৫ শতাংশ জীবাণু মরে যায়। কিন্তু সেই তুলনায় সাধারণ সুগন্ধি হ্যান্ডওয়াশে হাত ততটা সুরক্ষিত থাকে না। আবার হাত কচলে না ধুলেও হাতের উপরিভাগে, নখের কোনায়, আঙুলের ফাঁকে ফাঁকে অনেক সময় জীবাণু থেকে যায়। তাই কচলে হাত ধোয়াই সেরা উপায়। বরং নিয়ম মেনে, ঘন ঘন হাত ধুলে স্যানিটাইজারের প্রয়োজনও পড়ে না।’

তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘স্যানিটাইজার দিন, তবে হাত না ধুয়ে শুধু এতে ভরসা করলে কাজের কাজ হবে না। একান্তই হাত ধোয়ার অবস্থায় না থাকলে তবেই স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। আইসোপ্রোফাইল অ্যালকোহল বা ইথাইল অ্যালকোহল মেশানো স্যানিটাইজারও সাবান বা জীবাণুনাশক হ্যান্ডওয়াশের মতো জীবাণু রুখতে সক্ষম নয়। তা ব্যবহার করুন, কিন্তু একমাত্র তাকেই সহায় করে তুলবেন না। জীবাণুনাশক হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে বা সাবান দিয়ে ভাল করে হাত ধোয়াই বাঁচার উপায়।’

তার সঙ্গে সহমত পোষণ করে ক্রিটিক্যাল কেয়ারের বিশেষজ্ঞ অঙ্কন সেনগুপ্তও বলেন, ‘হাত কচলানো, ফেনা ও পানির সমন্বয়ে হাত যেভাবে পরিষ্কার হয়, স্যানিটাইজার ততটা পারে না। বাইরে থাকলে, হাত ধোয়ার উপায় একান্তই না থাকলে তখন হাতের কাছে রাখা স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। কিন্তু তাকেই একমাত্র সহায় ধরবেন না। ভাল করে হাত না ধুয়ে শুধু স্যানিটাইজার ব্যবহারেই করোনা-হানা রুখে দেওয়া যাবে, এমন ধারণা ভিত্তিহীন।’

অর্থসূচক/এনএম/এএইচআর