সাত কোটি টাকা আত্মসাৎ: সচিবসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

0
109
dudok

dudokমিথ্যা ভাউচারের মাধ্যমে সরকারের প্রায় সাত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা মামলায় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক যুগ্ম-সচিব এবং সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারি সচিবসহ চারজনকে আসামি করে চার্জশিট দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার দুদকের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

গতকাল  দুদকের উপ-পরিচালক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহীন আরা মমতাজ মহামান্য আদালতে এ চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলেন- ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিব মো. সামসুল আলম, সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারি সচিব জনাব জিয়া উদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক-১ এর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা বিলাশ চন্দ্র হাওলাদার এবং ডিপিসি-পিডিএএস কনসোর্টিয়ামের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহমুদুর রহমান।

দুদকের ওই নির্ভরযোগ্য সূত্রটি জানায়, ভূমির মালিকানা খতিয়ান মুদ্রণসংক্রান্ত কাজের জন্য তৎকালীন ভূমিরেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের পরিচালক মো. সামসুল আলমসহ উপরোক্ত আসামিদেরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তারা উদ্ধৃত প্রায় ৩৬ টাকা দরে ডিপিসি- পিডিএএস কনসোর্টিয়ামকে কাজটি পাইয়ে দেয়। কিন্তু তারা এই দরপত্রের বিপরীতে নিম্নমানের কাগজ সরবরাহ করে এবং কার্যাদেশ অনুযায়ী ঠিকাদার যথাসময়ে যথাযথভাবে খতিয়ান মুদ্রণ করে সরবরাহ না করে ঠিকাদারের নামে নামমাত্র বিল পাশ করে।

উক্ত বিল এজি অফিসে দাখিল করে ৪টি বিলের বিপরীতে মোট ৬ কোটি ৮৫ লাখ ৬৩ হাজার ৩২০ টাকার ৪টি চেক উত্তোলন করে। সংশ্লিষ্ট জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারগণের প্রতিবেদন নোটসিটে যথাযথভাবে উপস্থাপন না করে ঠিকাদারের পেশকৃত ভাউচারে ‘‘ডিজিটাল খতিয়ান বুঝে পাওয়া গেল’’ মর্মে মিথ্যা প্রত্যয়ন দেয়। এরপর তারা পরস্পর যোগসাজসে ওই টাকা ঠিাকাদার প্রষ্ঠিানকে না দিয়ে নিজেরা আত্মসাৎ করে।

উপরোক্ত অভিযোগসমূহ প্রমাণিত হওয়ায় দুদকের উপ-পরিচালক মলয় কুমার সাহা বাদী হয়ে রাজধানীর তেজগাঁও থানায় গত বছরের ৩১ জানুয়ারি একটি মামলা (মামলা নং-৩৭) করেন। পরিবর্তিতে এই মামলার তদন্তভার উপ-পরিচালক শাহীন আরা মমতাজকে দেওয়া হয়। পরে তারা তদন্ত শেষে গত ২২ এপ্রিল কমিশন চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দেয়।

তাই দণ্ডবিধির ৪০৯, ১০৯ এবং ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন-৫ (২) ধারায় মহামান্য আদালতে উপ-পরিচালক শাহীন আরা মমতাজ চার্জশিটটি দাখিল করেছেন। যার জিআরও নাম্বার-৭২।