চৌদ্দ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন ডিএসইতে

0
68
DSE-Down
সূচক পতন

DSE-Downচৌদ্দ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন হয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। রোববার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩২৯ কোটি ৯৪ লাখ টাকার। এর আগে গত ১৩ এপ্রিল ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ২২৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার। এই দিন ডিএসইর সব ধরণের সূচকে বড় ধরণের পতন ঘটেছে। ডিএসই প্রধান সূচক কমেছে ৬২ পয়েন্ট। লেনদেনে অংশ নেওয়া ৬৩ শতাংশ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। এছাড়া চার কার্যদিবসের মধ্যে ১৬১ পয়েন্ট কমেছে ডিএসই প্রধান সূচক।

বিশ্লেষকদের মতে, গত সপ্তাহে চার কার্যদিবসেই সূচকের পতন ঘটেছিল। এছাড়া অনেক কোম্পানি গত সপ্তাহে লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। অনেক কোম্পানিরই লভ্যাংশের পরিমাণ কমেছে। আবার কয়েকটি কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের কোন লভ্যাংশ দেয়নি। যে কোম্পানিগুলো লভ্যাংশ দিয়েছে তা বিনিয়োগকারীদেরকে আকৃষ্ট করতে পারেনি। এই সমস্ব কারণে বিনিয়োগকারীদের বাজারের প্রতি আগ্রহ দেখা যাচ্ছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসইএক্স বা প্রধান সূচক ৬২ পয়েন্ট কমেছে রোববার। গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস থেকে এই সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস পর্যন্ত প্রধান সূচক কমেছে ১৬১ পয়েন্ট। আজ প্রধান সূচকের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৫০৪ পয়েন্টে। অন্য সূচক ডিএসইএস ১২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৬ পয়েন্টে। এছাড়া ডিএস৩০ সূচক ২৫ পয়েন্ট কমেছে। এই সূচকের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৬৪৬ পয়েন্টে।

এই দিন ২৮৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেনে অংশ নিয়েছে। অংশ নেওয়া বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। ১৮০টি কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। আর শেয়ার দর বেড়েছে ৮৪টি কোম্পানির। এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টি কোম্পানির শেয়ার দর।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সিএসই সার্বিক সূচক ১৪৭ পয়েন্ট কমেছে। এই সূচক অবস্থান করছে ১৩ হাজার ৮৯৫ পয়েন্টে। সিএসইতে লেনদেনে মোট অংশ নিয়েছে ২০৭টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬২টির কমেছে ১২৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টির।

অর্থসূচক/এমআরবি/