‘নারী-পুরুষ বৈষম্য রোধে জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট দরকার’

0
99

Steps_tuardsনারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য দূরীকরণে জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রনয়ণ অত্যন্ত জরুরী বলে জানালেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে স্টেপস টুয়ার্ডস ডেভেলপমেন্ট আয়োজিত ‘জেন্ডার সংবেদনশীল জাতীয় বাজেট-২০১৪’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, জেন্ডার সংবেদনশীলতায় মনিটরিং সেল গঠন ও পর্যবেক্ষণ করে জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রনয়ণ করতে হবে। কারণ মনিটরিং সেল গঠনের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হলে পুরুষ আর নারীর মধ্য যে বৈষম্য রয়েছে তা দুর করার সম্ভব হবে।

নারী পুরুষের বৈষম্য দূরীকরণে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে চুমকি বলেন, নারী ও পুরুষের মাঝে যেন কোনো ভেদাভেদ না থাকে সে জন্য প্রত্যেক উপজেলায় সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এসব কর্মসূচির ফলাফল খুব শিগগরিই পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

জাতিসংঘ সিডও কমিটির সাবেক সভাপতি সালমা খান বলেন, নারী নির্যাতন, যৌন হয়রানি ও বাল্য বিবাহসহ নারীর প্রতি সকল সহিংসতা ও বৈষম্য বন্ধ করতে জাতীয় বাজেটসহ স্থানীয় সরকারের বাজেটগুলোতে জেন্ডার সংবেদনশীলতার বিষয়ে লক্ষ্য রাখা দরকার।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে দুর্দশাগ্রস্ত জনগোষ্ঠির বেশিরভাগই নারী। বিধবা, স্বামী-পরিত্যক্ত, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী নারীদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। গ্রামের এসব অসহায় ও অতিদরিদ্র পরিবারগুলোকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করতে হবে।

তিনি বলেন, সরকার দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে যে তথ্যসেবা চালু করেছে সেখানে নারীদের জীবন ঘনিষ্ঠ তথ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। পাশাপাশি নারীরা যাতে নির্বিঘ্নে তথ্যসেবা পেতে পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও গ্রহণ করা দরকার।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রঞ্জিত কুমার চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ক্যাম্পেইন ফর পপুলার এডুকেশন এর নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সৌরভ সিকদার, ড্যনচার্চএইড এর কান্ট্রি ম্যানেজার হাসিনা ইনাম, ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশের এডভোকেসি ডিরেক্টর চন্দন গোমেজ, অর্থ মন্ত্রনালয়ের সহকারি সিনিয়র সচিব তারিকুল ইসলাম খান প্রমুখ।

জেইউ/