বাজেটে সিম ট্যাক্স কমতে পারে

0
103
mobile operator
মোবাইল ফোন কোম্পানির লোগো

mobile operatorআগামি অর্থবছরের (২০১৪-১৫) বাজেটে সিম ট্যাক্স তথা মোবাইল ফোনের সিমের উপর আরোপিত করের পরিমাণ কমতে পারে। সচিবালয়ে মোবাইল অপারেটরগুলোর শীর্ষ নির্বাহীদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এমন আভাস দিয়েছেন। বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, অপারেটরদের পক্ষ থেকে সিম স্থানান্তর কর সংক্রান্ত জটিলতার অবসান, করপোরেট কর কমানো, ইন্টারনেট সংযোগের জন্য ব্যবহৃত মডেমে শুল্ক প্রত্যাহারসহ বেশ কিছু দাবি করা হয়। মন্ত্রী এ বিষয় বিবেচনা করার আশ্বাস দেন।

বৈঠকে করপোরেট ট্যাক্স বা কোম্পানি কর ১০ শতাংশ কমানোর দাবি জানিয়েছে দেশের ছয় মোবাইল ফোন অপারেটর। তারা তালিকাভুক্ত মোবাইল ফোন অপারেটরের করপোরেট ট্যাক্স ৪০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩০ শতাংশ করার প্রস্তাব দিয়েছে। আর তালিকা-বহির্ভূত অপারেটরের কর ৩৫ শতাংশ নির্ধারণের কথা বলেছে। বর্তমানে এ করের হার ৪৫ শতাংশ।

এছাড়া, নতুন সংযোগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান সিম ট্যাক্স-এর প্রত্যাহার চেয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব। বর্তমানে প্রতিটি নতুন সংযোগের ক্ষেত্রে সরকারকে সিমের জন্য ৩০০ টাকা করে কর দিতে হয়।

অপারেটরদের পক্ষ থেকে বলা হয়, দেশে এখনও বিপুল জনগোষ্ঠি ফোন নেটওয়ার্কের বাইরে। তাদেরকে এ নেটওয়ার্ক নিয়ে আসতে পারলে জীবন যেমন সহজ হবে, তেমনই প্রবৃদ্ধিতে তারা আরও বেশি অবদান রাখতে পারবেন। সিমের উপর কর ও উচ্চ করপোরেট কর তৃণমূল পর্যায়ের মানুষদেরকে মোবাইল নেটওয়ার্কের ভেতর নিয়ে আসার পথে একটি বাধা।

অপারেটররা মোবাইল ফোনে আর্থিক লেনদেন বা মোবাইল ব্যাংকিং সেবার ক্ষেত্রে বিদ্যমান মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট সম্পূর্ণ প্রত্যাহার করারও প্রস্তাব দিয়েছে। বর্তমানে এ সেবায় ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর আছে। তারা বলেছে, মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস সেবা খাতে নতুন সংযোজন। এ বিষয়টিকে জনপ্রিয় করা ও তার ব্যাপ্তি বাড়ানোর জন্য এ সুবিধা দেওয়া দরকার। এ সেবার পরিধি বিস্তৃত হলে তা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে সহায়ক হবে।