আগামি বাজেট হবে আড়াই লাখ কোটি টাকার

0
77

muhit-budgetআগামি বাজেটের আকার বাড়ছে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত জানিয়েছেন আসন্ন বাজেটের আকার হবে প্রায়  ২ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকার।

রোববার দুপুরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষ-২ অনুষ্ঠতি সংসদীয় ও স্থায়ী কমিটির সভাপতিদের সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনায় তিনি এ সব কথা বলেন।

তবে বাজেটের আকার বড় হলেও তা উচ্চাভিলাষী নয় বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার হবে ৭৮ হাজার কোটি টাকা এবং রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা বাড়বে।

তিনি  বলেন, আগামি বাজেটে মানবসম্পদ উন্নয়ন সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য গত ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিলো প্রায় ২ লাখ ২২ হাজার কোটি টাকার বেশি। গত বাজেটে প্রবৃদ্ধি’র লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিলো ৭.২ শতাংশ। সম্ভাব্য মুদ্রাস্ফিতি ধরা হয়েছিলো ৭.০ শতাংশ।

বাজেটে ব্যক্তিকরের সর্বোচ্চ সীমা ধরা হয়েছিলো ২ লাখ ২০ হাজার টাকা। প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিলো ১৪ হাজার ৪৫৮ কোটি টাকা। শিক্ষা ও প্রযুত্তি খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিলো ২৬হাজার ৯৩ কোটি টাকা।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিলো ১১ হাজার ৩৫১ কোটি টাকা। কৃষি খাতে ব্যয় হয়েছিলো ১২ হাজার ২৭০ কোটি টাকা আর শিল্প খাতে ৩ হাজার ২০৬ কোটি টাকা। এছাড়া পদ্মা সেতু প্রকল্পে ছয় হাজার ৮৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিলো ।

প্রাক-বাজেট আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি রমেশ চন্দ্র সেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী আফসারুল আমিন, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবেক শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ড. আতিউর রহমান , এনবিআর এর চেয়াম্যান গোলাম হোসেন প্রমূখ।