পাশ্চাত্য ধাঁচের পোশাকে সৌদি নারী বিপণিবিতানে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

0
235

পরনে বোরকা নেই। মাথায় নেই সৌদি আবায়াও। রিয়াদের একটি শপিং মলে পশ্চিমা ধাঁচের খোলামেলা পোশাক পরে চুল উড়িয়ে চলছেন রক্ষণশীল সৌদি আরবের এক দুঃসাহসী নারী।

ইসলামী শাসন ব্যবস্থার এ দেশটিতে এমন পোশাক নিষিদ্ধ হলেও কয়েক মাস ধরে এভাবেই স্বাধীন চলাফেরা করছেন ৩৩ বছর বয়সী মাশায়েল আল-জালুদ।

বিষয়টি শুধু সৌদি আরবেই নয়, সারা বিশ্বে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

ওই নারীর নাম মাশায়েল আল-জালুদ (৩৩)। এভাবে রাস্তায় হাঁটতে দেখে পথচারীরা ভেবেছিলেন, তিনি কোনো তারকা হবেন। আদতে না নন। তিনি একজন সাধারণ নারী। তিনি রিয়াদে একটি প্রতিষ্ঠানে মানবসম্পদ বিশেষজ্ঞ হিসেবে কর্মরত।

পর্দার বিধান থাকায় বাইরে বের হতে হলে সৌদি আরবে নারীদের আবায়া (বোরকা) পোশাক পরতে হয়। অতিরক্ষণশীল দেশটিতে এটাকে সৌন্দর্যের বিধান হিসেবে দেখা হয়। কিন্তু গত বছর মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিএসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান সৌদি নারীদের পোশাকের বিধিবিধান শিথিল করার ইঙ্গিত দেন। যুবরাজ নারী স্বাধীনতা নিয়ে নানা পদক্ষেপ নিলেও পোশাকের ওপর থাকা বিধিনিষেধের বিষয়টি এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে তোলেননি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মাঝেমধ্যে এ নিয়ে কিছু নারীকে প্রতিবাদ জানাতেও দেখা যায়। এ সময় সেখানে তারা বোরকা পরা নারীদের ছবিও পোস্ট দেন। কিন্তু ঝুঁকি জেনেও অনেক নারী সাধারণ পোশাকেই বাইরে বের হতে শুরু করেছেন। মুষ্টিমেয় ওই নারীর একজন মাশায়েল।

তবে মাশায়েলের ঘটনাটি চোখ এড়ানোর মতো নয়। তার পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া এক নারী তো প্রশ্নই করে বসেন, ‘আপনি কি তারকা? আপনি কি মডেল?’ হেসে উত্তর দেন মাশায়েল, ‘না, আমি তারকা নই। আমি একজন সাধারণ সৌদি নারী।’

এর আগে জুলাইয়ে একবার বোরকা ছাড়া রিয়াদের আরেকটি বিপণিবিতানে প্রবেশ করতে চেয়েছিলেন মাশায়েল। তবে সে সময় তাকে সেখানে ঢুকতে দেওয়া হয়নি বোরকা না পরার কারণে।

অর্থসূচক/কেএসআর