নড়বড়ে প্রকৌশল খাত

0
112
engineering turnover

পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ দিনটি ভালো যায়নি প্রকৌশল খাতের। বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এ খাতের ৬৪ ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে। সামগ্রিকভাবে খাতটির বাজার মূলধন কমেছে দশমিক পাঁচ শতাংশ।

ডিএসইতে বৃহস্পতিবার প্রকৌশল খাতের ২৫ কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়।  এর মধ্যে মাত্র ৯ টি কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়ে। দাম কমে ১৫ টি কোম্পানির। আর একটি কোম্পানির শেয়ারের দাম থাকে অপরিবর্তিত।

Engineeringবিশ্লেষকদের মতে, গুটিকয়েক কোম্পানির শেয়ারে ঝোঁক অতিমাত্রায় বেড়ে যাওয়ায় অন্য খাতগুলোর অবস্থা কিছুটা নাজুক হয়ে উঠছে। আর এরই প্রভাব পড়েছে প্রকৌশল খাতেও।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে প্রকৌশল খাতের কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দর হারায় ইস্টার্ন ক্যাবল ও কে অ্যান্ড কিউ। দুটি কোম্পানিরই শেয়ারের দাম কমে ৮ দশমিক ৪ শতাংশ করে। আর ৭ শতাংশ দর হারায় রেনউইক যজ্ঞেসর।  এটলাস বাংলাদেশ দর হারায় ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, আজিজ পাইপস, বাংলাদেশ অটোকারস, বাংলাদেশ ল্যাম্পস, বাংলাদেশ থাই এলুমিনিয়াম, বিএসআরএম স্টিল, মুন্নু স্টাফলার, ন্যাশনাল পাইপস, ন্যাশনাল পলিমার, কাসেম ড্রাইসেল, আরএফএল ও সিঙ্গারের শেয়ারের দাম দশমিক ৮ শতাংশ থেকে ২ দশমিক ৭ শতাংশ পর্যন্ত কমে।

তবে সামগ্রিকভাবে খাতটির নাজুক অবস্থার মধ্যেও এদিন  তিনটি কোম্পানির শেয়ারের দাম ৫ শতাংশের বেশির হারে বাড়ে। এর মধ্যে জিপিএইচ ইস্পাতের শেয়ারের দাম বাড়ে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ, বেঙ্গল উইন্ডসরের ৫ দশমিক ৩ শতাংশ এবং দেশবন্ধু পলিমারের ৫ দশমিক ১ শতাংশ বাড়ে।