লিবরা ইনফিউশনের স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ

আল আরাফাহর বিরুদ্ধে ঋণপত্র বন্ধের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
152

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আল আরাফা ইসলামি ব্যাংকের বিরুদ্ধে ঋণপত্র বা এলসি (Letter of credit-LC) বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ করেছে পুঁজিবাজারেরই অপর এক কোম্পানি লিবরা ইনফিউশন লিমিটেড। ঋণপত্র খুলতে না পারায় কাচামালের অভাবে ডায়রিয়া ও ডেঙ্গু’র চিকিৎসায় ব্যবহৃত স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে বলে দাবি করেছে কোম্পানিটি। শুধু তা-ই নয়, লিবরা ইউনিট-২ এ বিনিয়োগ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েও কোনো বিনিয়োগ করেনি ব্যাংকটি। নানা টালবাহানার মাধ্যম কালক্ষেপণ করে চলেছে। আর এভাবে কোম্পানিটিকে (লিবরা ইনফিউশন) ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে বলে তাদের অভিযোগ।

আজ ২৫ আগস্ট, রোববার কোম্পানিটির প্রকাশিত এক মূল্য সংবেদনশীল তথ্যে এ অভিযোগ করা হয়েছে।

তথ্য মতে, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ইতিমধ্যেকোম্পানিটির সকল প্রকার কাঁচামাল, যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম আমদানী এলসি (ঋণপত্র) খুলতে অপারগতা জানিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। সেই কারণে ডেঙ্গু ও ডায়রিয়া রোগের জীবনরক্ষাকারী স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে।

মূল্য সংবেদনশীল তথ্যে আরও জানানো হয়েছে লিবরা ইনফিউশন লিমিটেড এ ইউনিট-২ এর বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি থাকলেও অদ্যবধি বিনিয়োগ না করে টালবাহানা ও কালক্ষেপন করে এই কোম্পানিটিকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এদিকে কোম্পানিটিকে ডেঙ্গু ও ডায়রিয়ার স্যালাইন উৎপাদনের ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় থেকে কঠোরভাবে মনিটরিং ও তদারকী করা হচ্ছে এবং সরবরাহের ব্যাপারে কোম্পানিকে প্রচন্ড তাগিদ দিচ্ছে। কিন্তু আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের সিদ্ধান্তের কারণে কোম্পানির স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।

উল্লেখ্য, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক কোম্পানির সমস্ত ব্যাংকিং সুবিধা চার বছর ধরে বন্ধ করে রাখে। পরে দুই পক্ষের সমঝোতার মাধ্যমে অমীমাংসিত ব্যাংকিং সুবিধা সমূহ গত ১২ আগস্ট ২০১৮ তারিখে আপোষনামা তে ইউনিট-২ তে পুন:বিনিয়োগ উল্লেখ করে সমাধান হয়। অদ্যবধি পূন: বিনিয়োগের ব্যবস্থা না করে ব্যাংকটি গত ২ মে ২০১৯ তারিখের একটি পত্রে “Pari-passu charge প্রদানে অনাপত্তি প্রদান করা যেতে পারে” বলে উল্লেখ করে। পরে বা্যংকটি গত ২২ জুলাই ২০১৯ তারিখে একটি পত্রে পরিপূর্ণ Pari-passu দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে Renewal দেয়। যেটার পরিপ্রেক্ষিতে কোম্পানিটি Renewal অনুমোদনে অস্বীকৃতি জানায়। তাই ব্যাংকটি কোম্পানিটির এলসি সুবিধা বন্ধ করে দেয়। উল্লেখিত আপোষনামা অনুযায়ী ব্যাংক পূন:বিনিয়োগ না করে এবং পরে Pari-passu দিতে স্বীকার করা স্বত্তেও এখন পরিপূর্ণ Pari-passu দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে ব্যাংক Renewal দেয়। যার কারণে কোম্পানির ব্যাংকের পূন:তফসিলকৃত দায়দেনা পরিশোধ করা অসম্ভব এবং যা Going concern threat এর সামিল।