মহান বিজয় দিবস আজ
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

মহান বিজয় দিবস আজ

bijoy-dibosআজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। গত ৪২ বছর ধরে দিনটি বাংলাদেশিদেশীদের জন্য সবচেয়ে আনন্দের দিন। তবে এবার সেই আনন্দের সাথে বাড়তি যোগ হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে হত্যা,ধর্ষণ আর লুন্ঠনেরমতো অপরাধের অভিযোগে প্রথম এক অপরাধীর সাজা কার্যকরের আনন্দ। একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসি হলো কাদের মোল্লা ওরফে কসাই কাদেরের। সেই জন্যই এই বছর  বিজয় দিবসের আনন্দ আগের বছর গুলোর তুলনায় একটু বেশি।

 

১৯৭১ সালের এই দিনে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত হয় দেশ। দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ, ৩০ লাখ শহীদের জীবন, দুই লাখ মাবোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে  বিশ্বের মানচিত্রে সৃষ্টি হয় নতুন একটি সার্বভৌম দেশ, বাংলাদেশ।

যারা বুকের তাজা রক্ত দিয়ে এ বিজয় ছিনিয়ে এনেছেন আজ সেসব শহীদকে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় স্মরণ করবে দেশের সর্বস্তরের মানুষ। বাংলার দামাল মুক্তিযোদ্ধা আর মুক্তিপাগল মানুষের প্রবল প্রতিরোধ আর লড়াইয়ের মুখোমুখি হয়ে বাংলাদেশ থেকে পরাজিত হয়ে এ দিনে আত্মসমর্পণ করেছিলো পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। ৪৩ বছর আগে আজকের এই দিনে পূর্ব আকাশে উদয় হয়েছিলো নতুন স্বপ্নের সূর্য, স্বাধীনতা। তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েই শুরু হবে আজকের দিন।

দিনটি ছিলো বৃহস্পতিবার, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। পৌষের পড়ন্ত বিকেলে তৎকালীন ঢাকার রেসকোর্স ময়দান বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিকেল সাড়ে ৪টায় পাকিস্তানের সামরিক আইন প্রশাসক জোন-বি এবং ইস্টার্ন কমান্ডের কমান্ডার লে. জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজীর নেতৃত্বে ৯১ হাজার ৫৪৯ পাকিস্তানি সেনা আত্মসমর্পণ করে। মেজর জেনারেল জ্যাকবের তৈরি করা আত্মসমর্পণের দলিলে বিকালে স্বাক্ষর করেন জেনারেল নিয়াজী ও লে. জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা।

মুজিবনগর সরকারের পক্ষে এ সময় উপস্থিত ছিলেন গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ কে খন্দকার। আর এ আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের অবসান ঘটে। জন্ম নেয় একটি নতুন দেশ- বাংলাদেশ।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ,  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পৃথক বাণী দিয়েছেন।
এদিকে দিনটি উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সংগঠন ও দল নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সকালে সূর্যোদয়ের সময় সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুষ্পার্ঘ অর্পণ করবেন।

অনুষ্ঠানে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা সমন্বিত গার্ড অফ অনার প্রদান করবে। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ও কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে।

দেশের জাতীয় দৈনিকগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র, সরকারি-বেসরকারি টিভি চ্যানেল, বাংলাদেশ বেতার ও এফএম রেডিও স্টেশনগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালা সমপ্রচার করবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ