শান্তির স্বপক্ষে সাদা পতাকার মানববন্ধন

0
64
দোকান মালিক সমিতির মানববন্ধন

দোকান মালিক সমিতির মানববন্ধনসংঘাত, প্রাণহানি ও ব্যবসা-বাণিজ্য ধ্বংসের পথ পরিহার করে শান্তির স্বপক্ষে রাজধানীর বিজয় নগর দোকান মালিক সমিতি সাদা পতাকা হাতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর বিজয়নগর কার ডেকোরেশন মার্কেটের সামনের রাস্তায় এ মানববন্ধন পালন করেন তারা।

বিজয়নগর দোকান মালিক-সমিতির সভাপতি ও রাজধানী দোকান মালিক সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান এম এ মান্নান মানববন্ধন প্রসঙ্গে বলেন, “আমরা দেশে সংঘাত, হানাহানি অরাজকতা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না। আমরা ক্ষুদ্র-ব্যবসায়ীরা দোকান-ভাড়া এমনকি বাড়ি-ভাড়া পর্যন্ত দিতে পারছি না। আমাদের কর্মচারীদের বেতন দিতে পারছি না।

তিনি আরও বলেন, “কর্মচারীরা আমাদের ওপর নির্ভরশীল। তারা ঘর ভাড়া দিতে পারছে না। বড় কষ্টে দিনানিপাত করছি। ব্যাংক লোন শোধ করতে পারছি না। কার কাছে আমাদের আর্তনাদ আর দাবিগুলো জানাব? আমরা দু-নেত্রীর কাছেই বিনীতভাবে আবেদন জানাচ্ছি, যাতে তারা হানাহানির রাজনীতি ছেড়ে আমাদের জন্য সুস্থ রাজনীতি করে আমাদেরকে বাঁচান।

রাজনৈতিক সংকটের সমাধান চাই সরকারের প্রতি এমন দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, সংকট সমাধানে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। পাশাপাশি বিরোধীদলের সহযোগিতা কামনা করছি।

বিজয়নগর দোকান মালিক সমিতির সেক্রেটারি ও রাজধানী দোকান মালিক সমিতির যুগ্ম মহাসচিব এস. এম সাইফ সুফি বলেন, “আজ মতিঝিলে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আকরাম ভাইয়ের নেতৃত্বে আমরা সেখানেও সাদা পতাকার মানববন্ধনে সামিল হব। আমরা রাজনৈতিক সংকট সমাধান চাই। ব্যবসা বাণিজ্যের নিম্নমুখী প্রবণতা বন্ধ করতে চাই।

গাড়ি শ্রমিক নেতা ফারুক আহমেদ মানববন্ধনে বলেন, “আমাদের ব্যবসা গাড়ি নির্ভর। কার ডেকোরেশন করা হলো আমাদের কাজ। যদি হরতাল অবরোধ এভাবে হয় তবে গাড়ি চলে না, আর গাড়ি না চললে তো আমাদের দোকান থাকে বন্ধ। আজ মাসের ১৫ তারিখ গেলেও কোনো দোকানের মালিক শ্রমিকদের বেতন দেয়নি। মালিকদের আমরা চাপ দেব কোন যুক্তিতে। তাদের আর্থিক অবস্থা তো আমরা জানি। আমরা চাই সরকার আমাদের মতো নিম্ন-আয়ের মানুষের কষ্টগুলো বিবেচনা করবে।

মানববন্ধনটি বেলা সাড়ে ১২টার পর মতিঝিলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সঙ্গে সাদা পতাকার আন্দোলনে সম্পৃক্ত হওয়ার কথা। এ সময় বিজয় নগর দোকান মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মোমিনুল ইসলামসহ প্রায় দু’শতাধিক মালিক-শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন।

এমআর/