রানা প্লাজা ট্রাজেডি; আরও ৫৩ শ্রমিক পেল প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা

0
41

ranaplazaরানা প্লাজার ক্ষতিগ্রস্ত আরও ৫৩ শ্রমিক পরিবারের ৭৩ সদস্যকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হলো। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর রানা প্লাজা তহবিল থেকে সর্বশেষ ডিএনএ সনাক্ত শ্রমিক পরিবারের সদস্যকে এই ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়। সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ কার্যালয়ে শ্রমিক পরিবারের মাঝে ৭৩ টি চেক বিতরণ করেন।

আজকের এই সহায়তাসহ  এই তহবিল থেকে ৯০৯ জনকে মোট ২ কেটি ১১ লাখ ৫৫ হাজার ৭২০ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হলো।

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিল বলেন, এই ঘটনায় আহত ৭৭৭ জনকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া ১৪ জন এতিম ছেলেকে রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ স্কুলে পড়াশোনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে পড়ানো হচ্ছে ১৭ জন এতিম মেয়েকে।

আজকের এই চেক প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর সচিব আবুল কালাম আজাদ, বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম, উপ-প্রেস সচিব মুহম্মদ আশরাফুল আলম প্রমুখ।

জানা যায়, মোট ডিএনএ পরীক্ষার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ৩২২ ব্যক্তির দাঁত ও হাড়গোড় ল্যাবরেটরিতে দেওয়া হয়েছিল। মৃত শ্রমিকদের স্বজনদের পক্ষ থেকে ৫৪০টি পরিবারের ৫৪৮ জন ডিএনএ’র জন্য রক্ত প্রদান করে। তাতে প্রথম রিপোর্টে ১৫৭ জনের ফলাফল মেলে। শ্রম মন্ত্রণালয়ের হাইকোর্টে পাঠানো তালিকায় রানা প্লাজার নিখোঁজ শ্রমিকের সংখ্যা উল্লেখ করা হয় ৩৭৯ জন। তবে সেনাবাহিনীর করা তালিকায় নিখোঁজ শ্রমিকের সংখ্যা ২৬১ জন উল্লেখ করা হয়।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারের রানা প্লাজা ধসে অন্তত ১১৩৪ জনের প্রাণহানি ঘটে। আর তাতে প্রায় আহত হয় আড়াই হাজারেরও বেশি পোশাক শ্রমিক।

উল্লেখ্য, সাভারের ওই ভবনে ৫টি পোশাক কারখানায় ৩৬৩৯ জন পোশাক শ্রমিক কাজ করতেন।  প্রাইমার্কসহ ওয়ালমার্ট, টেক্সম্যান, পিডব্লিউটি গ্রুপ, এনকেডি, ম্যাংগো, জেসিপেনি, গোল্ডেনপি ফেনিং, এলপিপি, ইসেনজা, কেয়ারফোর, সিঅ্যান্ডএ, ক্যাটোকোপ, চিল্ড্রেন প্লেস, বেনিটোন, আদিয়ার, আউচান, ড্রেসহার্ন, মেনিফাটুরা করোনা, প্রিমিয়ার ক্লোথিং, কিডস্ ফ্যাশন, স্টোর-২১, মাস্কট, মাটালান, এল কোর্টে ইনগিস, কিক, লবলো, বন মারচে, ক্যামিউ এর মতো মোট ২৯ ক্রেতা প্রতিষ্ঠান পোশাক কিনতো।

এসইউএম/সাকি