জিএসপি পুনর্বহালের শর্তপূরণের অগ্রগতি বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে চিঠি

0
93
তোফায়েল আহমেদ

তোফায়েল আহমেদঅগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্যক সুবিধা (জিএসপি) পুনর্বহালের শর্তপূরণের অগ্রগতি বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। জিএসপি ফিরে পেতে বাংলাদেশের বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে যুক্তরাষ্ট্র অনুধাবন করতে পেরেছে বলে মনে করেন তিনি।

মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে ঢাকাস্থ অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি বোর্ডের চেয়ারম্যান অ্যালেন ও. তাউসচিরের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দলের সাথে মতবিনিময় করে  মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, জিএসপি সুবিধার ওপর স্থগিত আদেশ প্রত্যাহারের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া শর্তগুলো পূরণের সর্বশেষ অগ্রগতির তথ্য ইউএসটিআরয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। জিএসপি ফিরে পেতে বাংলাদেশ আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে। তাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিষয়টি অনুধাবণ করতে পেরেছে বলে দাবি করেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন,  তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের উন্নত কাজের পরিবেশ, নিরাপত্তা ও উপযুক্ত সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। আগের যে কোনও সময়ের চেয়ে বর্তমানে কারখানাগুলোতে কাজের পরিবেশ ও নিরাপত্তা অনেক ভালো বলে দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, অ্যালায়েন্স বাংলাদেশের পোশাক কারখানাগুলোতে কাজের পরিবেশ ও নিরাপত্তার বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। শ্রমিকদের কাজের পরিবেশ, নিরাপত্তা এবং অধিকার প্রতিষ্ঠার বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপে ক্রেতা জোটটি সন্তোষ প্রকাশ করেছে। তাছাড়া, এখাতের নিরাপত্তার জন্য সবধরনের সহযোগিতা প্রদান করার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, পোশাক খাত এখন অনেক দূর এগিয়ে গেছে। রপ্তানি আয়ের ৮০ শতাংশই আসে খাত থেকে। সরকার এ খাতকে একটি শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড় করাতে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বলেও দাবি করেন মন্ত্রী।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ইতোমধ্যে ক্রেতা জোটটি ৬৭৫টি তৈরী পোশাক কারখানা পরিদর্শন করেছেন। তবে এর মধ্যে একটি কারখানায় ক্রটি পাওয়া গেছে, যেটা তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কারখানায় ফায়ার সেফটি নিশ্চিত করতে ফায়ার সেপটি ডোর আমদানির ক্ষেত্রে সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে, যাতে সকলেই কারখানায় এগুলো স্থাপন করতে পারেন।

এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।