তারেক যা বলেছেন তা ইতিহাসে সত্য: ফখরুল

0
35

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরতারেক রহমান যা বলেছেন তা ইতিহাসে সত্য। বই পুস্তক ও তৎকালীন পত্রপত্রিকায় তা লেখা আছে বলে জানালেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এ সময় তিনি সঠিক তথ্য জানতে আওয়ামী লীগের প্রবীণ রাজনীতিবিদদেরকে ‘মুক্তিযুদ্ধের পূর্ব কথোপকথন’ বইটি পড়ার আহ্বান জানান।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল আয়োজিত ‘তারেক রহমান সম্পর্কে ধারাবাহিক মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে’ প্রতীবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা আলমগীর বলেন, তারেক রহমান বই পুস্তক থেকে দলীল দিয়ে কথা বলেছেন। তার বক্তব্যে যদি ভুল থাকে তাহলে উপযুক্ত তথ্য প্রমাণসহ জবাব দিন। কিন্তু তা না করে সংসদে যে ভাষায় কুৎসা রটনা করা হচ্ছে। এই আচরণ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক দেওলিয়াত্বেরই বহি:প্রকাশ।

ইট মারলে, পাটকেল খেতে হবে উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, শহীদ জিয়াকে নিয়ে তারা নানা কথা বলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের কাদের সিদ্দিকী ছাড়া আর কোন নেতাকে তখন যুদ্ধের ময়দানে দেখা যায়নি।

ইত্তেফাক পত্রিকায় ৭১ সালের ২৬ মার্চ প্রকাশিত শিরোনামের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, হরতাল ডাকা হয়েছিলো ২৫ মার্চ রাতের জন্য। স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়া হয়নি তখন।

প্রতীবাদ সভায় দেশ রক্ষার্থে সকলকে এক সাথে রাজপথে আন্দোলন করার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার ইতিহাস যারা বিকৃতি করেছে তারা অপপ্রচার চালিয়েই যাবে। আর যারা স্বাধীনতা বিনির্মাণ করেছে ইতিহাস তাদেরই ধারণ করবে। অপপ্রচার কারীরা টিকবেনা। ইতিহাস তারেক রহমানকেই ধারণ করবে।

দেশের অস্তিত্ব আজ হুমকীর মুখে মন্তব্য কওে তিনি বলেন, আজকে মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করা হয়েছে, ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে, নির্বাচন কমিশন ক্ষমতা হীন, বিচার ব্যাবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে, প্রশাসনে দলীয়করন করা হয়েছে, তিস্তায় পানি নেই। এ অবস্থা থেকে বের হতে না পারলে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব টিকিয়ে রাখা যাবে না।

যুবদলের সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে যারা অপপ্রচার চালায় তারা আনকালচার্ড, অসামাজিক। তাদের কাছ থেকে এর চেয়ে ভাল কিছু আশা করা যায় না। তাদের নিজেদেরই তো কোন আত্মপরিচয় নেই।

ছাত্রদলের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ এর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, সহ- স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশারফ হোসেন, ছাত্রদলের সভাপতি( সাবেক) সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ।

জেইউ/সাকি