বেতন না পেয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছে আখচাষি ও মিল কর্মকর্তারা

0
46
setabgonj col (1)

setabgonj col (1)দিনাজপুর জেলার একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান সেতাবগঞ্জ চিনিকল। বর্তমানে ১১ হাজার ৪৯৭.৫০ মেট্রিক টন চিনি অবিক্রিত থাকায় আখ চাষিদের বকেয়া দিতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। ফলে না খেয়ে মানবেতর দিনানিপাত করছে আখচাষিরা।

আখচাষিরা প্রতিনিয়ত টাকার জন্য মিল কর্তৃপক্ষের নিকট ধর্ণা দিলেও তাদের  খালি হাতে ফেরৎ পাঠানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

চিনিমিল কর্তৃপক্ষ জানায়, সেতাবগঞ্জ চিনিকলে ২০১৩-২০১৪ মাড়াই মৌসুমে আখচাষিদের বকেয়া প্রায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা। সময়মতো চাষিদের বয়েকা পরিশোধ করতে না পারায় প্রায় চাষিদের তোপের মুখে ব্যবস্থাপনা পরিচালককে পড়তে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সেতাবগঞ্জ চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো.শহিদুল্লাহ জানান, বেসরকারি চিনি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কম মূল্যে বাজারে সরবরাহ করায় আমাদের চিনি বিক্রি হচ্ছে না।

বর্তমানে এই চিনিকলে ২০১১-১২ মৌসুমের ২ হাজার ৫১১.৮৫ মেট্রিক টন এবং ২০১২-১৩ মৌসুমে ৪ হাজার ৮৬.৯৫ মেট্রিক টন চিনি অবিক্রিত রয়েছে। যার বর্তমান বাজার মূল্য ৪৬ কোটি টাকা। এই বিশাল অংকের চিনি বিক্রিয় না হওয়ায় চিনিকলটি চরম অর্থ সংকটে পড়েছে।

তিনি আরও জানান, এই অর্থ সংকটের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বার বার জানালে তাদের কাছ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

এদিকে আখচাষি সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলী মর্তূজা জানান, মিল কর্তৃপক্ষ আখচাষিদের টাকা পরিশোধ না করায় চাষিরা খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে।

বোচাগঞ্জ উপজেলার আখ চাষি আব্দুল মালেক জানান, আগামিতে চিনিকলটিকে বাচাঁতে চাইলে মজুদকৃত চিনি বিক্রয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। তা না হলে আগামি মৌসুমে আখের অভাবে উক্ত মিলটি বন্ধ হয়ে যেতে পারে। শুধু আখচাষিরা তা নয় মিলে কর্মরত প্রায় ১২শ জন শ্রমিক-কর্মচারীরা গত কয়েক মাসের বকেয়া বেতন না পাওয়ায় মানবেতর জীবন যাপন করছে।

কেএফ