সতর্ক থাকুন, পানিশুন্যতা থেকে বাঁচুন

0
84
juice

juiceউৎসবে এসে গরমে হাঁপিয়ে ওঠেছেন। শরীর একদমই ক্লান্ত। গরমে আর ভালো লাগছে না। চোখে মুখ একেবারেই বিষিয়ে উঠছে, উৎসব বিরক্তিকর ঠেকছে। মঙ্গল শোভা যাত্রার সময়ে যে গরম পড়েছে তাতে এমনি হওয়ার কথা, কিন্তু এখনো পুরো দিন বাকি। তাই সতর্ক থাকুন, পানি শুন্যতা এড়াতে নিচের নির্দেশনাগুলো মেনে চলুন :

খারাপ লাগতে শুরু করলে রাস্তায় কিংবা পার্কের মধ্যে হুটহাট সিদ্ধান্ত না নিয়ে সম্ভব হলে বাসায় চলে যান। একটু বিশ্রাম নিয়ে গোসল করুন। এরপর ফ্যানের নিচে কিংবা এসি রুমের মধ্যে একটু বিশ্রাম নিতে পারেন। তাতে শরীরের তাপ একটু কমবে। এরপর সম্ভব হলে তরমুজের জুস পান করতে পারেন।

যদি বেলের সরবত থাকে তবে তো কথাই নেই। তবে এই শরবতের সঙ্গে হালকা আপেল কুচি, তোকমা, ইসুবগুলের শরীরকে আরও আরাম দিবে।

অনেকে এই সময় কচি ডাবের ঠাণ্ডাপানি পান করতে পছন্দ করেন। এটা করতে পারলে তো ভালো। ডাবের পানি পান করতে পারলে তাৎক্ষণিক দুর্বলতা কমে আসে। তবে এগুলোর কোনোটাই সম্ভব না হলে পাকা পেঁপের জুস শরীর ঠাণ্ডা করতে সাহায্য করবে।

শরীরের অতিরিক্ত তাপের কারণে দোকান কিংবা রাস্তার আইসক্রিম খেলে উপকার নাও পেতে পারেন। কারণ আইসক্রিম আপনার শরীরের তাপ আরও বৃদ্ধি করে পানির পিপাসা বাড়িয়ে দেবে।

তবে যদি এর কোনোটাই সম্ভব না হয় সেক্ষেত্রে ডাণ্ডা পানির সঙ্গে একটা খাওয়ার স্যালাইন পান করতে পারেন। তাতে আপানার পানিশুন্যতা দূর হতে পারে।

বৈশাখের রঙে নিজে রাঙানোর আনন্দ একেবারে আলাদা। প্রিয়জনের সঙ্গে আপন মনে গল্প করা, সময় কাটানো এবং হাত ধরে ঘুরে বেড়ানোর অনুভূতিটাই ভিন্ন। তবে এই গরমে  আর অগণিত মানুষের ভিড়ে সেই অনুভূতিটাই মাটি হতে পারে। তবে একটু সাবধান থাকতে পারলে বৈশাখের আগমনে ভালোবাসার সব রং মাখিয়ে রঙিন হতে পারে আপনার মুহূর্তটুকু। তাই আবেগের সব দরজা খুলে দিয়ে বৈশাখীর আনন্দে মেতে ওঠতে একটু সর্তক থাকুন। উপভোগ করুন বৈশাখের বাধ ভাঙ্গা আনন্দ। শুভ নববর্ষ।