রাজশাহীকে কোন পাত্তাই দিলো না সিলেট

অর্থসূচক ডেস্ক

0
26

সিলেট টার্গেট দিলো ১৮১ রানের। এই বিশাল রান তাড়া করতে নেমে ১০৪ রানেই অল আউট রাজশাহী কিংস। ফলে বিপিএলের ২৯তম ম্যাচে ৭৬ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গেলেন মেহেদি হাসান মিরাজরা।

শুরুতে ব্যাটিং করে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮০ রান তুলেছিল সিলেট। ১৮১ রানের বিশাল টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে এগুতে থাকে রাজশাহী। দলীয় ১৬ রানেই দুই ওপেনার ইভান্স ও মুমিনুল হকের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় দলটি। এরপর একের পর এক উইকেট তুলে নিয়ে রাজশাহীর পরাজয় ত্বরান্বিত করেন সিলেটের বোলাররা।

রাজশাহীর ইনিংসে একমাত্র লড়াই করতে সক্ষম হয়েছেন ফজলে মাহমুদ। ৪১ বলে ঠিক ৫০ রান করে মোহাম্মদ নওয়াজের বলে অলক কাপালির তালুবন্দি হয়ে তিনি বিদায় নিলে ম্যাচ থেকেও ছিটকে পড়ে রাজশাহী। তার এই ফিফটির ইনিংসটি ৬ চার ও ১ ছক্কায় সাজানো। রাজশাহীর হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ রান এসেছে জাকির হাসানের ব্যাট থেকে।

বল হাতে ৩টি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন সিলেটের সোহেল তানভীর ও মোহাম্মদ নওয়াজ। ২টি করে উইকেট ঝুলিতে পুরেছেন তাসকিন আহমেদ ও এই ম্যাচে সিলেটের অধিনায়ক অলক কাপালি।

এর আগে, চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর ২টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিং নেন রাজশাহী অধিনায়ক মেহেদি হাসান মিরাজ।

ব্যাটিংয়ে নেমে দারুণ শুরু করে সিলেট। ওপেনার লিটন কুমার দাস ও সাব্বির রহমান গড়েন ২০ রানের জুটি। তবে এই স্কোরে সাব্বির করেন মাত্র ১ রান। আর সেই এক রানেই আরাফাত সানির বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন তিনি।

বল হাতে মোস্তাফিজুর রহমানের প্রথম ওভারেই ফেরেন আরেক ওপেনার লিটন। ১৩ বলে ২৪ রান করা লিটন মেহেদি হাসানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন।

হাফসেঞ্চুরির কাছে গিয়েও ব্যর্থ হন জেসন রয়। সেকুল্লে প্রশন্নের বলে বোল্ড হয়ে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২৮ বলে ৪২ রান। যেখানে ছিল ৪ট চার ও ২টি ছক্কার মার। ১৮ বলে ১৯ রান করে কামরুল ইসলাম রাব্বির বলে ফেরেন নিকোলাস পুরান।

বড় স্কোরের আভাস দিলেও ২৯ বলে ২৮ রান করে টেন ডেসকটের বলে আউট হয়ে ফেরেন তরুণ আফিফ হোসেন। ৭ বলে ১১ রান করে মোসাফিজুর রহমানের বলে ফিরে যান মোহাম্মদ নাওয়াজ।

রাজশাহীর হয়ে দুটি উইকেট নেন মোস্তাফিজ। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন ডেসকাট, কামরুল ইসলাম, সানি ও প্রসন্নে।

অর্থসূচক,এমএস