রমনা বটমূলে বর্ষবরণ

0
56
Chayanot Ramna
ফাইল ছবি

Chayanot Ramnaআজ পয়লা বৈশাখ। বাংলা ১৪২১ সনের প্রথম দিন। বছরের শুরুতে প্রথম প্রহরে সরোদে আহীর-ভৈরব সুরের মুর্ছনায় বর্ষবরণ করেন ছায়ানট সংগীতবিদ্যায়তনের শতাধিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও শিল্পী।

সোমবার সকাল ছয়টা পাঁচ মিনিটে রাজধানীর রমনা বটমূলে ছায়ানট আয়োজন করে ‘স্বদেশ ও সম্প্রীতি’ বর্ষবরণ অনুষ্ঠান।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে তবলায় রয়েছে এনামুল হক ওমর, গৌতম সরকার, স্বরূপ হোসেন, বেহালায় আলমাস আলী, বাঁশিতে মো. মনিরুজ্জামান, দোতারায় রতন কুমার রায়, মন্দিরাতে প্রদীপ কুমার রায়, ঢোলে দশরথ, কি-বোর্ডে ইফতেখার হোসেন সোহেল।

রমনা পার্কের দেওয়ালে দেওয়ালে আঁকা নানা রঙের আল্পণা ও চিত্রকর্ম, বাশ, বেত ও কাঠের তৈরি বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিকৃতি সাজানো রমনার বটমূল। চারদিকে বর্ষবরণের সাজ সাজ রব।

এবারের অনুষ্ঠানে ছায়ানটের শিল্পীদের পাশাপাশি অংশ নিচ্ছেন অতিথি শিল্পীরাও। তারা গান ও আবৃত্তি দিয়ে তাদের অনুষ্ঠান সাজিয়েছেন। এতে অংশ নিচ্ছেন ১৫০ জনেরও বেশি শিল্পী।

ছায়ানটের সহ-সভাপতি ডা. সারওয়ার আলী বলেন, ধর্মের সাথে সংস্কৃতির বিরোধ নেই; কিন্তু বর্তমান সমাজে এক ধরনের ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। যা দূর করতে রাষ্ট্র অক্ষম। এই ক্ষত দূর করতে সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে ছায়ানট দ্বায়বদ্ধ বলে বিশ্বাস করে। সে লক্ষ্যেই কাজ করে চলেছে ছায়ানট।

ছায়ানট দেশের শেকড় সন্ধানী সংস্কৃতির চর্চায় পথিকৃত্ প্রতিষ্ঠান। ১৯৬৭ সালে প্রথম ‘বর্ষবরণ’ অনুষ্ঠান আয়োজন করে সংগঠনটি। তারপর থেকে প্রতিবছর ছায়ানটের এ আয়োজন জাতীয় পর্যায়ে বর্ষবরণের প্রধান অনুষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। ২০০১ সালে ছায়ানটের অনুষ্ঠানে ইতিহাসের কলংকময় বোমা হামলা চালায় জঙ্গিরা। এতে প্রাণহানি ঘটে অনেকের।

এধরণের ঘটনার পূনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেইসাথে এবারের অনুষ্ঠান নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করতে আইন শৃংখলা বাহিনী সবধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) জানিয়েছে, অনুষ্ঠানস্থল ও এর আশপাশের এলাকার মানুষের নিরাপত্তায় ১১ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে।পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, ডিবি,এনএসআই, ডিজিএফআইসহ অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও মাঠে থাকবেন।

এছাড়া অনুষ্ঠানে আসা দর্শনার্থীদের সুবিধার জন্য এখানে একটি অস্থায়ী পুলিশ কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে জরুরী চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া হবে। এছাড়া কারো কোন কিছু হারানো গেলে লস্ট ও ফাউন্ড সেন্টারের মাধ্যমে তথ্য সরবরাহ করা হবে।১১২ টি সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে নিয়ন্ত্রন করা হবে সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে র‌্যাবের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত অপ্রীতিকর কোনো কিছু ঘটার তথ্য পাইনি।তাছাড়া রমনা পার্কসহ আশপাশের এলাকায় র‌্যাবের পাঁচটি পর্যবেক্ষণ টাওয়ার বসানো হয়েছে যাতে করে কোন কিছু ঘটলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়।

এবারের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানটি পৃষ্ঠপোষকতা করছে মোবাইল অপারেটর প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন। অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ দেশের আরও কয়েকটি বেসরকারি চ্যানেল।

এমআর