‘মুনাফা বৃদ্ধির পাশাপাশি দেশের কল্যাণে আসবে জিপিএইচের নতুন প্রকল্প’

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
153
GPH-MD-2
জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড তার কারখানা সম্প্রসারণ করছে। বাড়াচ্ছে উৎপাদনক্ষমতা। কোম্পানির সম্প্রসারিত কারখানার নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের পথে। ইস্পাত শিল্পে বিশ্বের সর্বশেষ প্রযুক্তি ইএএফ কোয়ান্টাম প্রযুক্তিতে এই কারখানা নির্মিত হচ্ছে। নির্মাণ শেষ হলে এটি হবে দেশের কনস্ট্রাকশন রড (টিএমটিবার, ৬০ গ্রেড রড) উৎপাদনকারী সব কারখানার মধ্যে সবচেয়ে আধুনিক ও উন্নত কারখানা।

GPH-MD.jpg
চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। পাশে (ডানদিকে) প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান এবং (বাম পাশে) জিপিএইচ ইস্পাতের চেয়ারম্যান মো: আলমগীর কবির

সোমবার জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম এ কথা বলেছেন। দৈনিক প্রথম আলোর সঙ্গে ‘জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইনজিনিয়াস’ কর্মসূচির চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। এই কর্মসূচির আওতায় সারাদেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পুরকৌশল (Civil) শিক্ষার্থীদের জন্য কাঠামোগত নকশা (Structural Design) অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। আয়োজন করা হবে স্ট্রাকচারাল ডিজাইন সংক্রান্ত একাধিক কর্মশালার।

অনুষ্ঠানে মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, নতুন প্রযুক্তির সম্প্রসারিত কারখানা নির্মাণের পর কোম্পানির মুনাফা বাড়বে। কিন্তু তারচেয়েও লাভবান হবে দেশ। কারণ একদিকে এই কোম্পানি আরও উন্নতমানের নির্মাণ উপকরণ সরবরাহ করতে সক্ষম হবে। অন্যদিকে কারখানাটি হবে জ্বালানি সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব।


আরও পড়ুন:

মেধাবী প্রকৌশলীদের খোঁজে জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো


এ বিষয়ে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, জিপিএইচ ইস্পাত নতুন পরিসরে বাজারে আসছে।কোম্পানিটি পন্য উৎপাদনে বর্তমানে ইনডাকশন ফার্নেস টেকনোলজি ব্যবহার করছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিদিন উৎপাদন ক্ষমতা ৫০০ টন। নতুন সম্প্রসারিত কারখানায় এ পদ্ধতির পরিবর্তে আরও অত্যাধুনিক কোয়ান্টাম ইলেক্ট্রিক আর্ক ফার্নেস টেকনোলজি ব্যবহার করা হবে। তা ব্যবহার করে প্রতিদিন ৩ হাজার টন পণ্য উৎপাদন করা যাবে।

তিনি বলেন, এই প্রযুক্তি (ইএএফ কোয়ান্টাম) এশিয়ায় এখনো ব্যবহার করা হচ্ছে না।পণ্য উৎপাদনে কোয়ান্টাম ইলেক্ট্রিক আর্ক ফার্নেস টেকনোলজি পাশের দেশ ভারত, চীন, এমনকি জাপানও ব্যবহার করছে না। বিশেষ করে এশিয়াতে এই টেকনোলজি আমরাই প্রথম ব্যবহার করবো। এর মাধ্যমে বিদ্যুত খরচ কমবে। এই টেকনোলজি ব্যবহারের মাধ্যমে  কোম্পানি পণ্য উৎপাদন করার মধ্যে দিয়ে দেশের টেকসই অবকাঠামো নির্মাণ তথা অর্থনৈতিক উন্নয়নে অবদান রাখবে।