মেধাবী প্রকৌশলীদের খোঁজে জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
129
GPH-Prothom-Alo.jpg

দেশে মেধাবী ও সম্ভাবনাময় তরুণ পুর-প্রকৌশলীদের খুঁজে বের করতে এক সঙ্গে কাজ করবে  সেরা মানের টিএমটিবার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেড এবং জনপ্রিয় সংবাদপত্র দৈনিক প্রথম আলো। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠান দুটির যৌথ উদ্যোগে আয়োজন করছে ‘জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইনজিনিয়াস’ নামের কর্মসূচি। এতে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল (Civil) বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কাঠামোগত নকশা (Structural Design) আহ্বান করা হবে। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের জন্য থাকবে দেশের সুনামখ্যাত শিক্ষাবিদ ও পুর-প্রকৌশলীদের (Civil Engineer) তত্ত্বাবধানে কর্মশালায় অংশ নেওয়া এবং দেশের শীর্ষস্থানীয় নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ। আর বিজয়ীরা পাবেন আকর্ষণীয় পুরস্কার।

GPH-Prothom-Alo.jpg
‘জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইন-জিনিয়াস’ প্রোগ্রামের চুক্তি বিনিময় করছেন জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম ও প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান। পাশে (ডানে) জিপিএইচ ইস্পাতের চেয়ারম্যান মো: আলমগীর কবির ও প্রথম আলোর যুব কর্মসূচির সমন্বয়ক মুনির হাসান; (ডানে) জিপিএইচ ইস্পাতের পরিচালক মো: আশরাফুজ্জামান এবং হেড অব মার্কেটিং গালিব মোহাম্মদ

‘জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইনজিনিয়াস’ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আজ ১৪ জানুয়ারি, সোমবার বিকালে প্রথম আলোর সম্মেলন কক্ষে জিপিএইচ ইস্পাত ও প্রথম আলোর মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি (MOU) সই হয়েছে। এতে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের পক্ষে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও জিপিএইচ গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম ও প্রথম আলোর পক্ষে সম্পাদক মতিউর রহমান সই করেন। এ সময় জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের চেয়ারম্যান আলমগীর কবির, পরিচালক মো. আশরাফুজ্জামান, হেড অব মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস গালিব মোহাম্মদ, উপ-মহাব্যবস্থাপক এনএইচ এম ফজলে রাব্বি, সহকারী মহাব্যবস্থাপক এ হক মাসুদ ও প্রথম আলো বিজ্ঞাপন বিভাগের মহাব্যবস্থাপক রাশেদুর রহমান, যুব কর্মসূচির সমন্বয়ক মুনির হাসান বাণিজ্য সম্পাদক সুজয় মহাজন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শুরুতে প্রথম আলোর যুব কর্মসূচি সমন্বয়ক মুনির হাসান ‘জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইনজিনিয়াস’ কর্মসূচির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশল শিক্ষার্থীদের দক্ষতা এবং তাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে করা হয়েছে এই আয়োজন।

জানা গেছে, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শিক্ষার্থীদের আন্তর্জাতিক কাঠামো প্রকৌশলের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া এবং ডিজাইনে দক্ষতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে স্ট্রাকচারাল ডিজাইন প্রতিযোগিতা ‘ইন-জিনিয়াস’ নামে শুরু হচ্ছে এই আয়োজন। এই আয়োজনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীরা দলীয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। কয়েকটি ধাপে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম পর্যায়ে মোট ৩০ টি দলকে বাছাই করা হবে।পরবর্তীতে ধাপে ধাপে গ্রুমিং এর মাধ্যমে প্রতিযোগিতার চুড়ান্ত পর্বে দিকে নিয়ে যাওয়া হবে। চুড়ান্ত বিজয়ী তিনটি দলকে পুরস্কৃত করা হবে।চ্যাম্পিয়ন দলটিকে নগদ পুরস্কার ছাড়াও বিশ্বের একটি পরিকল্পিত নগরী (planned  or smart city) সফরের সুযোগ দেয়া হবে।

GPH-Prothom-Alo-MOU
জিপিএইচ ইস্পাত-প্রথম আলো ইনজিনিয়াস প্রোগ্রামের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান

সমঝোতা স্মারক অনুষ্ঠানে জিপিএইচ ইস্পাতের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং জিপিএইচ গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জিপিএইচ ইস্পাত মানসম্পন্ন টিএমটিবার ও ৬০ গ্রেড রডসহ উন্নত নির্মাণ সামগ্রী উৎপাদনের মাধ্যমে দেশে টেকসই নির্মাণে ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। এই নির্মাণকে আরও আধুনিক এবং সর্বোচ্চ মানে উন্নীত করতে আগামী দিনের প্রকৌশলীদেরকে আন্তর্জাতিক মানের কাঠামো প্রকৌশলের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া, তাদেরকে বিশ্বমানে উন্নীত হতে উদ্বুদ্ধ করা ও তাদের দক্ষতা বাড়াতে সহযোগিতা করার লক্ষ্যে  ইনজিনিয়াস (En-genius) কর্মসূচির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে।


আরও পড়ুন:

‘মুনাফা বৃদ্ধির পাশাপাশি দেশের কল্যাণে আসবে জিপিএইচের নতুন প্রকল্প’


প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, আপনারা (জিপিএইচ) তরুণদের জন্য কিছু একটা করতে চান, এটা আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাদের জীবনের প্রধান সমস্যা চাকুরী বা উদ্যোক্তা হওয়ার শুরু দিক। আপনাদের ভাবনা আমাদের সঙ্গে যুক্ত হলো।আমরাও তরুণদের জন্য একটি প্রকাশনা করি, আর সেটা হলো স্বপ্ন। আপনাদের (জিপিএইচ) ভাবনার সঙ্গে আমরা (প্রথম আলো) যুক্ত হওয়ার ফলে তরুণদের জন্য সুদূর প্রসারী সুযোগ তৈরী হলো।একটি সম্ভাবনা তৈরী হলো।

তিনি বলেন, গত ১৫ বছরে দেশে ইস্পাত শিল্প অনেকটা বিকশিত হয়েছে। আপনারাও এগিয়েছেন। তরুনদের জন্য বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম কে তেরী করতে না পারলে দেশ এগুতে পারবে না। আপনাদের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের জন্য সম্ভাবনা তৈরী হলো।আমরা তরুণ প্রজন্ম তথা দেশের মানুষগুলোকে আলোর পথে নিয়ে যেতে চাই। আপনাদের উদ্যোগের ফলে তরুণ প্রকৌশলী তৈরী হবে। দেশে যে হারে বিকৃতভাবে বিল্ডিং নির্মাণ হচ্ছে আর সেই সময় আপনাদের উদ্যোগ বড় ভালো কাজ হয়েছে।এই উদ্যোগের ফলে দেশে অবকাঠামোগত কাজে নতুন সম্ভাবনা তৈরী হবে বলে আশা করেন তিনি।