চবি নাচবে বৈশাখী গানে

0
38

noboborshoপাহাড় আর সবুজে সবুজে ছাওয়া চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। প্রকৃতির খুব কাচাকাছি থাকে বলেই এই ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা বাংলা সংস্কৃতির সবকটি পালা পার্বন আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করে। তাই তো এবারের বাংলা নববর্ষ উদযাপন নিয়ে শিক্ষার্থী পার্থ উচ্চাসের সাথে বললেন কাল ক্যাম্পাস নাচবে বৈশাখী গানে।

বাংলা নববর্ষ ১৪২১কে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত হয়ে গেছে চবি ক্যাম্পাস। বৈশাখের বর্ণাঢ্য রং-এ সাজানো হয়েছে ক্যাম্পাস। বরাবরের মত এবারও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হচ্ছে দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য লোকজ মেলা। এবার পয়লা বৈশাখ উদযাপনের মূল মঞ্চ হবে বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ আবদুর রব হল সংলগ্ন মাঠ। এ উপলক্ষে জিরো পয়েন্ট থেকে শুরু করে পুরো ক্যাম্পাসকেই সাজানো হচ্ছে বৈশাখী চিকা ও আলোক সজ্জায়।

চবি’র অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী মুরাদ পড়াশোনার পাঠ চুকিয়েছেন বছর পাঁচেক হলো। তবু কোনো উৎসব পার্বন এলেই তিনি অজানা টানে ছুটে যান ক্যাম্পাসে।

কথা হলো বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা মুরাদের সাথে। তিনি বলেন, বৈশাখটা গত ১১ বছর ধরে ক্যাম্পাসেই উদযাপন করে আসছি। বছরের এই দিনে বন্ধুদের পূণর্মিলনি হয় বলে ক্যাম্পাসে ছুটে আসি। আর বৈশাখ এলে তো কথাই নেই।

মুরাদ জানান, ২০০২-০৩ সালে চবির বৈশাখী আয়োজন পুরোটাই করত  চারুকলা বিভাগ। পরবর্তীতে বিভাগটি শহরে স্থানান্তর করা হয়। বৈশাখ এলে ক্যাম্পাসে যখন চারুকলা আয়োজনের পসরা সাজিয়ে বসত তখন দেখতে খুব ভাল লাগত। ক্যাম্পাসটা সেজে উঠত।

বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ-১৪২১ বরণ কর্মসূচিতে রয়েছে সকাল ৯ টায় বিশ্ববিদ্যালয় রেল স্টেশন ১নং গেইট চত্বর (জিরো পয়েন্ট) থেকে বের হবে শোভাযাত্রা। এতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশগ্রহণ করবে।

সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ আবদুর রব হল সংলগ্ন মাঠে আলোচনা সভা ও বর্ণিল কর্মসূচির উদ্বোধন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব ও কর্মসূচি উদ্বোধন করবেন অনুষ্ঠান আয়োজন কমিটির সভাপতি ও চবি উপাচার্য প্রফেসর মো. আনোয়ারুল আজিম আরিফ। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখবেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও পয়লা বৈশাখ-১৪২১ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব সিরাজ উদ্দৌলাহ বলেন, ‘বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে দিনব্যাপী থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সঙ্গীত, নৃত্য, ফ্যাশন-শো ও মূকাভিনয়। এছাড়াও দিনব্যাপী রয়েছে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী বলী খেলা, সাপ খেলা, লাঠি খেলা, কাবাডি, বউচি খেলা, পুতুল নাচ, ইতিহাস ও ঐতিহ্যবাহী লোকজ মেলাসহ বাঙ্গালী সংস্কৃতির হাজারও উপকরণ।’

এছাড়া পয়লা বৈশাখের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকছে লালগীতি। কুষ্ঠিয়ার লালন আখড়া থেকে আসা ‘চাতক শিল্পী গোষ্ঠী’ লালনগীতি পরিবেশন করবেন। একই অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানের বিখ্যাত শিল্পী শ্যামসুন্দর বৈষ্ণব এর ছেলে বিখ্যাত ফোকশিল্পী প্রেমসুন্দর বৈষ্ণব, লোকজ গানের শিল্পী ফকির শাহাবউদ্দিন ও বাংলাদেশের বিখ্যাত ব্যান্ডদল সোলস সঙ্গীত পরিবেশন করবেন বলেও জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ- উদ্দীপনা। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যলয় পয়লা বৈশাখ-১৪২১ উদযাপন কমিটির সভাপতি ও উপাচার্য অধ্যাপক মো. আনোয়ারুল আজিম আরিফ বলেন, বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে অতীতের মত এবারও আমরা পহেলা বৈশাখ-১৪২১ উদযাপন করছি। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছে দিনব্যাপী বর্ণিল অনুষ্ঠানমালার।

অনুষ্ঠান উপলক্ষে চবিকে ঘিরে নেওয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পহেলা বৈশাখের আগে থেকেই ক্যাম্পাসে তৎপর রয়েছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ নিরাপত্তা বাহিনীর জোর নজরদারি। অনুষ্ঠানে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে বলে জানান হাটহাজারী থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইসমাইল হোসেন পিপিএম ।

এমআর/এসু