আইনে আটকা পড়লো কৃষি ব্যাংকের স্বতন্ত্র বেতন স্কেল

0
93
krishi bank
কৃষি ব্যাংকের লোগো

krishi bankবহু জল্পনা-কল্পনার স্বতন্ত্র বেতন স্কেল পাবেন না বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের (বিকেবি) কর্মকর্তা কর্মচারীরা। স্বতন্ত্র বেতন কাঠামোর আওতায় বেতন পাওয়ার জন্য ব্যাংকটি অর্থমন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করলেও তাদের এ আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে কৃষি ব্যাংকের (বিকেবি) কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন স্কেলের অন্তর্ভুক্ত করতে হলে আইনের পরিবর্তন করতে হবে।

অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্রায়ত্ত চারটি ব্যাংকের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল হচ্ছে শুনে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এই বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানটিকে স্বতন্ত্র বেতন কাঠামোর অধীনে নিয়ে আসার জন্য অর্থমন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করেছিলেন। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দেয় সরকার। আর রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো অর্জিত মুনাফা থেকে বেতন গ্রহণ করে। তাই বিকেবিকে এই সুবিধার আওতায় আনতে হলে এর আইন পরিবর্তন করতে হবে। এ আইনের পরিবর্তন প্রক্রিয়াগত দিক থেকে খুবই জটিল এবং সময়সাপেক্ষ। তাই এখনই তারা স্বতন্ত্র বেতন স্কেলের আওতায় আসছে না বলে সূত্রটি জানিয়েছে।

অর্থমন্ত্রণালয়ের ওই সূত্র আরও জানিয়েছে, রাষ্ট্রায়ত্ত চারটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের বেতন কাঠামো ইতিমধ্যে চূড়ান্ত করা হয়েছে। এটি এখন অর্থমন্ত্রীর অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। চলতি মাসের যেকোন দিন এটা অনুমোদনের পরই প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশের কৃষি খাতের উন্নয়নে যে কয়টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান সহায়তা দিচ্ছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক অন্যতম। কৃষি ব্যাংক একমাত্র রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত ব্যাংক। ব্যাংকটি সারাদেশে প্রান্তিক পর্যায়ে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত কৃষকদের ঋণ সহায়তা দেয়। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক অধ্যাদেশ ১৯৭৩ (রাষ্ট্রপতির আদেশ নং ২৭, ১৯৭৩) অনুযায়ী এই ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এই ব্যাংকটিতে ১০ হাজার কর্মী কাজ করছে।

কৃষিঋণ বিতরণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কৃষি ঋণের প্রায় ৫২ থেকে ৫৫ শতাংশ বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক এককভাবে দেয়। কম সুদ ও সহজ শর্তে কৃষকদের ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষিদের ব্যাপক হারে কৃষি ঋণ বিতরণপূর্বক পর্যাপ্ত ফসল উত্পাদনের মাধ্যমে দেশের খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের ব্যাপারে সরকারের ‘দিন বদলের কর্মসূচি’ বাস্তবায়নের অন্যতম পথিকৃত্ বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কৃষি খাতের জন্য একটি বিশেষায়িত ব্যাংক হলেও এটি অন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের মতো সব ধরনের ব্যাংকিং কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে। ব্যাংকটি বিভিন্ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নসহ বাংলাদেশ ব্যাংকের ফসল উৎপাদন পঞ্জিকা ও ঋণ নিয়মাচার অনুযায়ী বিভিন্ন মৌসুমে উৎপন্ন ফসল অনুদানে এলাকাভিত্তিক প্রায় ৯৮টি ফসলে ব্যাপক ঋণ বিতরণ করে যাচ্ছে।

এসএই/