জবিতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ

0
33
jogannath

jogannathজগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) সাংবাদিক সমিতির যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক এস এম আল-আমিনকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন এক শিক্ষক। আল-আমিন দৈনিক সমকালের জবি প্রতিবেদক।

তাই জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে শনিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ওই সাংবাদিককে তার মুঠোফোনে হুমকি দেন মোজাহরুল আলম সেলিম নামে বাংলা বিভাগের এক শিক্ষক।

উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগে তিনি বলেন, শিক্ষা সফরকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার মোজাহরুল আলম সেলিমের বিরুদ্ধে পরীক্ষার নম্বর কম দেওয়া ও হুমকির বিষয়ে বিভাগের চেয়ারম্যান ও বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন বাংলা বিভাগের ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে একই শিক্ষাবর্ষের ছাত্র দৈনিক সমকালের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি এস এম আল-আমিন খবর প্রকাশ করলে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে সেলিমের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন ওই শিক্ষক। যা সাংবাদিক আল-আমিনের মুঠোফোনে রেকর্ড হিসেবে রয়েছে।

গত ২৭ মার্চ থেকে ১ এপ্রিল বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মোজাহারুল আলম সেলিমের তত্ত্বাবধানে ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষের (৪র্থ ব্যাচ) শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সফরের আয়োজন করে বিভাগটি। কিন্তু শিক্ষা সফরে তিনি দুই জন বহিরাগত শিক্ষার্থীসহ নানা অনিয়ম করেন। বিভাগের শিক্ষা সফরে ছাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে অন্য বিভাগের শিক্ষার্থী নেওয়ার কোনো নজির নেই বিশ্ববিদ্যালয়ে। শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদ করলে তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন শিক্ষক সেলিম।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, শিক্ষা সফরের শুরুতেই সেলিম মোজাহার ছাত্র-ছাত্রীদের সফরে না গেলে নম্বর কমিয়ে দেওয়া এবং দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। তার একনায়ক সুলভ আচারণের কারণে ৪র্থ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাজীবন নিয়ে ভয়ে আছেন  বলেও লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এর আগে একই বিভাগের মিশু নামের এক ছাত্রীর সঙ্গে অশালীন আচরণের ফলে শিক্ষক মোজাহারুল আলম সেলিমের বিরুদ্ধে প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন। তখন তিনি ওই ছাত্রীর কাছে ক্ষমা চেয়ে পার পেয়েছিলেন।

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিক আল-আমিন বলেন, ‌স্যার মুঠোফোনে যে হুমকি দিয়েছেন এ কথাগুলো আমার কাছে রেকর্ড রয়েছে। ঘটনাটি আমি বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান হোসনে আরা জলি ও উপাচার্য মহোদয়কে জানিয়েছি।

এদিকে, উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, সাংবাদিকে হত্যা করার হুমকির অভিযোগ ও ওই ঘটনায় একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর প্রক্টরকে এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এই বিষয়টি নিয়ে রোববার বিভাগের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলবেন বলে তিনি জানান।

কেএফ