রাজশাহীতে চালের বাজার ঊর্ধ্বমুখী

0
136
Rice

Rice--রাজশাহীতে বেড়েই চলেছে চালের দাম। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে চিকন চালের দাম পাইকারি ও খুচরা বাজারে বেড়ে গেছে। পাইকারি বাজারে আটাশ ও মিনিকেট চালের দাম বস্তাপ্রতি (৮৪ কেজি) ১৫০ থেকে ২০০ টাকা এবং বাঁশমতি বস্তা প্রতি (৫০কেজি) ৮০ থেকে ১০০টাকা বেড়েছে। একই সময়ে খুচরা বাজারে মানভেদে প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ২ থেকে ৪ টাকা।

নগরীর পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বস্তাপ্রতি আটাশ চাল বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৬৫০ থেকে ৩ হাজার ৭০০ টাকায়। মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৯০০ থেকে ৩ হাজার ৯৫০ টাকা এবং বাঁশমতি ২ হাজার ৮৫০ থেকে ২হাজার ৯০০ টাকায়।

নগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকার পাইকারি চাল ব্যবসায়ী আসাদুজ্জামান রিংক্কু বলেন, ধানের দাম বেড়ে যাওয়ায় প্রতি বস্তা চালে কমপক্ষে ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়ে  গেছে। এরপর থেকেই চালের বাজার ঊর্ধ্বমুখী। দেশে পর্যাপ্ত ধান মজুদ থাকলেও মিল মালিক ও বড় ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

দুই সপ্তাহ আগে একই বাজারে ভালো আটাশ চালের দাম ছিল বস্তাপ্রতি ৩ হাজার ৪৫০ থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকা। মিনিকেট চাল ৩ হাজার ৭০০ থেকে ৩ হাজার ৭৫০ টাকা এবং বাঁশমতি ২ হাজার ৭৫০ থেকে ২হাজার ৭০০ টাকা। তবে মোটা চালের দাম আগের মতই আছে বস্তা প্রতি চিকন স্বর্ণা চাল (৮৪ কেজি) ২ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার ৮৬০, মোটা চাল ২ হাজার ৬০০ থেকে ২হাজার ৬৫০ টাকা ।

এদিকে নগরীর বিভিন্ন খুচরা বাজারে প্রতি কেজি আটাশ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৪ থেকে ৪৬ টাকা, মিনিকেট ৪৯ থেকে ৫১ টাকা। দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে ২ থেকে ৪ টাকা। এর আগে বিক্রি হয়েছে আটাশ ৪০ থেকে ৪২ টাকা, মিনিকেট ৪৬ থেকে ৪৮ টাকা। তবে মোটা চাল আগের দামে বিক্রি হচ্ছে। চিকন স্বর্ণা ৩৪ থেকে ৩৫ টাকা, মোটা স্বর্ণা ৩২ থেকে ৩৩ টাকা, পারিজাত ৩৩ থেকে ৩৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।