আটকে গেল রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
48

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলের রাখাইনে ফিরে না যাওয়ার দাবিতে কক্সবাজারে শরণার্থী শিবিরে বিক্ষোভ করেছে হাজার হাজার রোহিঙ্গা। রোহিঙ্গাদের এই বিক্ষোভের পর প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা রয়টার্স বলছে, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার পরিকল্পনা স্থগিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফেরত যাওয়ার কথা থাকলেও তাদের কেউই নিজ দেশে ফেরত যেতে চাচ্ছেন না। এ কারণে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়নি।

গত কয়েক দিন ধরে বাংলাদেশ সরকার এবং জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা আপ্রাণ চেষ্টা করেও রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফেরত যেতে রাজি করাতে পারেনি।

কুতুপালং ক্যাম্পে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম বলেন, আমরা উনচিপ্রাং ক্যাম্পে গিয়েছিলাম এবং দুপুর ২টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেছি কোনও রোহিঙ্গা ফেরত যেতে চায় কিনা জানতে। কিন্তু কেউ ফেরত যেতে চায়নি। এরপর বিকাল ৪টা পর্যন্ত সময় বাড়ানোর পরেও কেউ রাজি হয়নি।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে তাদের ওপর নির্ভর করছে এবং আমরা তাদের ওপর কোনও জোর করবো না। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া কখন শুরু হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যখন রোহিঙ্গারা চাইবে।

গত ৩০ অক্টোবর, বাংলাদেশ ও মিয়ানমার উভয় দেশ সম্মত হয় ১৫ নভেম্বর প্রত্যাবাসন শুরু করার বিষয়ে। কিন্তু মিয়ানমারে নিপীড়নমূলক ও বৈষম্যমূলক পরিস্থিতি বিরাজ করায় রোহিঙ্গারা সেখানে ফিরতে রাজি হচ্ছেন না।

জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা প্রথম দলের ৪৮৫টি পরিবারের মধ্যে প্রায় ৫০টি পরিবারের সাক্ষাৎকার নেয় গত মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর) ও বুধবার (১৪ নভেম্বর)। কিন্তু তাতে একটি পরিবারও যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেনি।

আবুল কালাম বলেন, আজকে ১৭টি পরিবারের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে এবং আমরা এর রিপোর্ট এখনও পাইনি।শরণার্থী ৪৮৫টি পরিবারের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

আজকের এই ব্যর্থতার ফলে ফেরত পাঠানোর গোটা প্রক্রিয়াটি কিছুটা অনিশ্চিত অবস্থার মধ্যে পড়ে গেল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করছি।

অর্থসূচক/কেএসআর