রংপুরে এরশাদসহ জাপার ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহণ হয়নি
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » রংপুর

রংপুরে এরশাদসহ জাপার ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহণ হয়নি

রংপুর রিটার্নিং অফিসারজাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদসহ চার প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহণ করেনি রিটার্নিং কর্মকর্তা। অন্যদিকে রংপুর ২ ও রংপুর ৫ আসনে কোনও প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়ন দাখিলের পর জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ডেপুটি কমিশনার ফরীদ আহাম্মদের কাছে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের জন্য রংপুর-১ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মসিউর রহমান রাঙ্গা, রংপুর-২ আসনে আসাদুজ্জামান সাবলু চৌধুরী  এবং রংপুর-৬ আসনে নুরে আলম যাদু মিয়া আরপিও ১৯৭২ সালের ধারা অনুযায়ী নিজে উপস্থিত হয়ে আবেদন পত্র দাখিল করেন। অন্যদিকে একই ধারা অনুসরণ করে রংপুর-৩ আসনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পক্ষে পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা এবং রংপুর-৪ আসনে প্রেসিডিয়াম সদস্য করিম উদ্দিন ভরসার পক্ষে কাউনিয়া উপজেলা জাতীয় পার্টি সাংগঠনিক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন ও ব্যাক্তিগত সহকারী মোসাদ্দেক আলী প্রত্যাহারের আবেদন পত্র জমা দেন।

শুক্রবার বিকেল ৫ টায় মনোনয়ন প্রত্যাহারের নির্ধারিত সময় পার হওয়ার পর রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক ফরীদ আহাম্মদ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, আরপিও ১৯৭২ এর ১ ধারা অনুযায়ী স্বশরীরে অথবা প্রার্থীর লিখিত অথরাইজডকৃত ব্যাক্তি উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন পত্র জমা দেয়ার নিয়ম থাকলেও তা না মানায় রংপুর-৩ আসনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, ৪ আসনে করিম উদ্দিন ভরসা, ৬ আসনে নুরে আলম যাদু এবং ১ আসনে মসিউর রহমান রাঙ্গার প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহন করা হয় নি। তবে রংপুর ২ আসনে আরপিও ধারা অনুযায়ী নিজে উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন জমা দেয়ায় বিশেষ বিবেচনায় জাপা প্রার্থী আসাদুজ্জামান চৌধুরী সাবলুর প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহন করা হয়েছে।

মসিউর রহমান রাঙ্গা এবং নুরে আলম যাদু মিয়া স্বশরীরে উপস্থিত থেকে আবেদন জমা দিলেও কেন তাদের প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহণ করা হয় নি-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন আরপিও অনুযায়ী আবেদনপত্রগুলো না আসায় তা গ্রহন করা হয় নি।

রিটার্নিং কর্মকর্তার এমন মন্তব্যে বক্তব্য নিয়ে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যপারে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা জানান, আমি তো নিজে গিয়ে প্রত্যাহারের আবেদন করেছি। তবু কেন যে তা গ্রহণ হলো না। কিছুই বুঝতে পারছি না।

অন্যদিকে রংপুর-২ আসনে জাপা প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন পত্র  গ্রহণ হওয়ায় সেখানে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী আবুল কালাম আহসানুল হক চৌধুরী ডিউককে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় শনিবার তাদেরকে এমপি ঘোষণা করা হবে বলে জানান রিটার্নিং কমকর্তা। অন্যদিকে রংপুর ৫ আসনেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ এইচএন আশিকুর রহমান চৌধুরীকেও  বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে।  এই আসনে জাপা প্রার্থী এসএম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর মনোনয়ন পত্র তুললেও তা দাখিল করেন নি।

রংপুরের ৬ টি আসনে মনোনয়ন পত্র উত্তোলন করেছিলেন ২১ জন। এর মধ্যে দাখিল করেছিলেন ১৯ জন। যাছাই বাছাই শেষে বাতিল হয়েছে ৬ জনের। বৈধ ১৩ জনের মধ্যে জাতীয় পার্টির ২ আসনের প্রার্থী আসাদুজ্জামান চৌধুরী সাবলুর মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের আবেদন গ্রহন হয়েছে। এখন মাঠে থাকলেন ১০ প্রার্থী।

 

 

 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ