এবিএম মূসাকে সর্বস্তরের শ্রদ্ধা; চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন কুতুবপুরে

0
48
musa

musaপ্রবীণ সাংবাদিক এবিএম মূসার মরদেহ নেওয়া হয়েছে জাতীয় প্রেসক্লাবে। সেখানে  দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সর্বস্তরের মানুষের ঢল নেমেছে সেখানে।

জানাজা শেষে তাকে নিয়ে যাওয়া হবে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে। সেখানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে বাংলাদেশের সাংবাদিকতার পথিকৃৎ এ বি এম মূসাকে।

তার ছেলে ডা. নাসিম মূসা জানান, বাবার লাশ রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছিল। সেখান থেকে বেলা ১২টায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য নেওয়া হয়েছে জাতীয় প্রেসক্লাবে। পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সেখানে বাদ জোহর দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে রাত দশটার মধ্যে তাকে দাফন করা হবে।

লাইফ সাপোর্টে থাকা সাংবাদিক এবিএম মূসাকে বুধবার দুপুরে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করার পরই তাকে তার নিজ বাসভবন মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডে নিয়ে আসা হয়।

বুধবার বাদ মাগরিব রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডের মাঠে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর রাত সাড়ে আটটার দিকে এবিএম মূসার মরদেহ রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের হিমঘরে নেওয়া হয়। রাতে মরদেহ সেখানেই রাখা ছিল।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ল্যাবএইডে ভর্তি হন এবিএম মূসা। তিনি ব্লাড ক্যান্সারের মতো রোগ মাইলো ডিসপ্লাস্টিক সিনড্রোমে আক্রান্ত ছিলেন। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে  বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন তিনি। অবস্থার অবনতি হলে মধ্যরাতে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছিল।

এবিএম মূসার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি স্ত্রী-সন্তানসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পারিবারিক জীবনে এ বি এম মূসার তিন মেয়ে মরিয়ম সুলতানা, পারভীন সুলতানা ও শারমীন মূসা এবং এক ছেলে নাসিম মূসা। স্ত্রী সেতারা মূসা এ দেশের নারী সাংবাদিকতার অন্যতম পথিকৃৎ।

কেএফ