সাপাহারে কৃষকদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে রিকের শিক্ষা সফর

0
83
নওগাঁ

নওগাঁনওগাঁর ঠাঁঠা বরেন্দর এলাকা হিসেবে পরিচিত সাপাহার, পোরশা ও পত্নীতলা উপজেলার প্রান্তিক চাষীদের সামর্থ বৃদ্ধি ও কারিগরি সহায়তা বাস্তবায়নের লক্ষে কেঁচো সার উৎপাদন ও ব্যবহার বিষয়ে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণে এক ব্যাতিক্রমী শিক্ষা সফর  অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা রির্সোস ইন্টিগ্রেশন সেন্টার (রিক) নওগাঁ জোনের আয়োজনে জেলার তিনটি উপজেলার ৪০ জন প্রকৃত কৃষককে কেঁচো সার উৎপাদন বিষয়ে বাস্তব অভিজ্ঞতা প্রদানের লক্ষে গত ২৬ এপ্রিল গাইবান্ধার ফুল ছড়ি উপজেলার কাবিলপুর, উরিয়ার চর এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ওই এলাকায় গণ উন্নয়ন কেন্দ্র নামের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার সহায়তায় যমুনার চরের বাসিন্দারা কেঁচো সার উৎপাদন ও ব্যবহার করে কি ভাবে তাদের ভাগ্যের উন্নয়ন করছে তা দেখানো হয়। এই ব্যতিক্রমী শিক্ষা সফরে অংশ গ্রহনকারী কৃষকদের নিজ এলাকায় শষ্য উৎপাদন রাসায়নিক সারের পরিবর্তে পরিবেশ বান্ধব জৈব সার হিসেবে কেঁচো সার উৎপাদন প্রয়োগ ও সংরক্ষণ এবং বাজারজাত করে অধিক মুনাফা অর্জনের মধ্য দিয়ে কিভাবে দেশের কৃষি ক্ষেত্রকে আরো সমৃদ্ধশালী করে গড়ে তোলা যায় এ বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উল্লেখ্য যে কুয়েত গুডউইল ফান্ড (কে জি এফ)এর আর্থীক সহায়তায় নওগাঁর বরেন্দ্র অঞ্চলের তিনটি উপজেলা সাপাহার, পোরশা ও পত্নীতলার কৃষকদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ বিষয়ে বেসরকারি সংগঠন রিসোর্স ইন্টিগ্রেশন সেন্টার (রিক) এর প্রগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মানিক চন্দ্র রায় বলেন কৃষকগন সারাটি বছর ফসল উৎপাদনে ব্যস্ত সময় কাটায় তাই তাদের বিনোদনের সময় অতিকম। আমরা এদিক টা চিন্তা করেই কৃষকদের জন্য সম্পূর্ণ অন্যরকম শিক্ষা সফরের আয়োজন করেছি । কৃষকগণ যাতে নতুন বিষয়ে বাস্তব অভিজ্ঞতা  অর্জন করে তা কাজে লাগিয়ে দেশের কৃষিক্ষেত্রকে আরো সমৃদ্ধশালী করে গড়ে তুলতে পারে। কৃষকদের ব্যাতিক্রমী শিক্ষা সফরে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার প্রোগ্রাম অফিসার আসিফ আরেফিন, আব্দুল আলিম, আবুল কালাম আজাদ, মঞ্জুরুল করিম, মনিরুজ্জামান, সাপ্তাহিক সাপাহার বার্তা পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক সাংবাদিক বাবুল আকতার প্রমুখ।

কিউএমএসটি/সাকি