খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী তাইওয়ান

0
68
taiwan trade fair

taiwan trade fairদেশে খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী তাইওয়ানের ব্যবসায়িরা। এছাড়া দেশীয় অন্যান্য শিল্পখাতেও বিনিয়োগ করতে আগ্রহী তারা। মঙ্গলবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে ‘তাইপেই ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার’ আয়োজিত বাণিজ্য মেলায় প্রতিষ্ঠানটির প্রজেক্ট ম্যানেজার আবিদ রেজা খান অর্থসূচককে এ কথা জানান।

আবিদ বলেন, ক্যানে করে জেলি বানিয়ে কিংবা বিভিন্ন ধরণের ফলমূলকে প্রক্রিয়াজাত করে খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন বাড়ছে। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এছাড়াও তাইওয়ানের তুলনায় আমাদের দেশীয় ফলমূলের স্বাদ ও মিষ্টতা অনেক বেশি। তাই খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ খাতে বিনিযোগ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন তাইওয়ানের ব্যবসায়িরা।

তিনি বলেন, এ ব্যাপারে ইতোমধ্যেই তাইওয়ানের এক ব্যবসায়ীর সাথে বিনিয়োগ নিয়ে আমাদের সাথে আলোচনা হচ্ছে।

মেলার উদ্দেশ্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাইওয়ানের পণ্যগুলো মানসম্মত এবং অনেক ভাল। তাছাড়া, আমাদের দেশে তাইওয়ানে উৎপাদিত বিভিন্ন ধরণের পণ্যের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তাই এই আয়োজন।

তবে, আমাদের দেশের ব্যবসায়িরা তাইওয়ান থেকে পণ্য আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে  সুযোগ তৈরি করতে পারে না বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, আমরাই মূলত দু’দেশের ব্যবসায়িদের মধ্যে যোগাযোগ করিয়ে দিচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, মেলায় এবার তাইওয়ানের ১৮ টি সাপ্লাইয়ার অংশ নিচ্ছে। তারা মেশিনারি, কাঁচামাল, সোলার ইলেক্ট্রিক, গার্মেন্টস এক্সেসোরিজ, প্লাস্টিক মেশিনারিজসহ ইত্যাদি পণ্য আমাদের ব্যবসায়িদের কাছে তুলে ধরছে।

প্রসঙ্গত, আয়োজক প্রতিষ্ঠানটি প্রতিবছরের মত এবারও এই মেলার আয়োজন করেছে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর দেশের ব্যবসায়িরা অনেক বেশি সাড়া প্রদান করছেন।

জনাব আবিদ বলেন, তাইওয়ানের ইনভেস্টমেন্ট আনাটাই মেলার মূখ্য উদ্দেশ্য।

তবে এক্ষেত্রে বেশ কিছু  প্রতিবন্ধকতা রয়েছে বলে জানান তিনি। বিশেষ করে,  বাংলাদেশে তাইওয়ানের কোনো দূতাবাস নেই। তাই তাইওয়ান যেতে হলে ভারত কিংবা পাকিস্তান হয়ে যেতে হয়। এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এমআর